নারায়ণগঞ্জ ১০:১০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
সিদ্ধিরগঞ্জে মসজিদের বিরোধ নিস্পত্তি করায় হাজী ইয়াসিন মিয়ার বিরুদ্ধে অপবাদ সিদ্ধিরগঞ্জে ব্যবসায়ীর উপর হামলার ঘটনায় সন্ত্রাসী পানি আক্তারের বিরুদ্ধে মামলা সিদ্ধিরগঞ্জে অটোরিকশার ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী নাঈম নিহত সিদ্ধিরগঞ্জে জমি দখল করতে সজু বাহিনীর হামলা আদমজী ইপিজেডের ব্যবসা ছিনিয়ে নিতে আক্তার বাহিনীর হামলায় আহত-২ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ন সম্পাদক হওয়ায় সিদ্ধিরগঞ্জে দেলোয়ারকে সংবর্ধনা ডিসিদের প্রতি ২৫ নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রী আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি পবিত্র শবে মেরাজ সিদ্ধিরগঞ্জে ডিবি পরিচয়ে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে গ্রেফতার ৬ সিদ্ধিরগঞ্জে অভিযানে  ৩ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা ভোক্তা অধিকার

আইনজীবী সমিতির নির্বাচন : প্রার্থী বাছাইয়ে দুই দলেই নানা হিসেব নিকেশ

  • প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৮:২৬:৪৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৯ ডিসেম্বর ২০১৭
  • ১৭১ বার পড়া হয়েছে

আদালত পাড়ায় আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতার লড়াইয়ে মাঠে অবস্থান করছেন অনেকেই। এদের মধ্যে কেউ মুখ খুললেও অনেকেই গোপনে নির্বাচন করতে আগ্রহ প্রকাশ করছেন।

আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে প্রতিবারের মতো এবারও প্রতিদ্বন্দ্বিতার লড়াইয়ে মাঠে নামবেন মূলত দুটি দল একটি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সমর্থক সম্মিলিত আইনজীবী পরিষদ অপরদিকে বিএনপি জামায়াত সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদের প্যানেল।

এবারের নির্বাচনকে ঘিরে আদালতপাড়ায় দু’গ্রুপের মধ্যে চলছে আলোচনা সমালোচনার ঝড়। দুইটি প্যানেলই নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছে। এবার নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে কারা মাঠে অবস্থান করবেন সেটাই মূল আকর্ষণের বিষয়। নির্বাচনে শক্ত প্রার্থী দেয়ার পাশাপাশি নিজেদের অভ্যন্তরীণ কোন্দল কমিয়ে আনাসহ নানা উদ্যোগ গ্রহণ করে যেকোনো মূল্যে বিজয় ছিনিয়ে আনতে মাঠে রয়েছেন সরকার সমর্থক ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের আইনজীবীরা। এদিকে সংগঠনের পূর্ণ শক্তি ফিরে পেতে মরিয়া বিএনপি ও জামায়াতপন্থী আইনজীবীরা। নিজেদের কর্তৃত্ব দখলে নিতে দুই গ্রুপের আইনজীবীরাই আদালত পাড়ায় ব্যস্ত সময় পাড় করছেন।

জানা গেছে, আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে খারাপ ফলের কথা মাথায় রেখে সরকার সমর্থক আইনজীবীরা শক্ত প্রার্থী দেয়ার চিন্তাভাবনা করছে। সরকার সমর্থক আইনজীবী প্যানেলকে মোকাবেলা করে জয় ছিনিয়ে আনতে বিএনপি সমর্থক আইনজীবীরাও শক্ত প্রার্থীর কথাও ভাবছেন।

তারপরও এই নির্বাচনে প্রার্থী বাছাইয়ে কোন ধরনের ক্রটি যাতে না হয় সে বিষয়টি মাথায় রাখা হচ্ছে বলে সরকার সমর্থক আইনজীবী মত প্রকাশ করছেন।

অপরদিকে সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের প্রার্থী চূড়ান্ত নিয়ে চলছে নানা গুঞ্জন।
জানা গেছে, সরকার সমর্থক আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের প্যানেল থেকে সভাপতি পদে প্রার্থীরা হলেন সাবেক আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারন সম্পাদক এড. হাসান ফেরদাউস জুয়েল, এড. খোকন সাহা, এড. আসাদুজ্জামান, পিপি এড. ওয়াজেদ আলী খোকন।

তবে সভাপতি পদে যারা প্রার্থীতা পেতে পারেন তাদের মধ্যে আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারন সম্পাদক ও তাঁতী লীগের নারায়নগঞ্জ জেলার সভাপতি এড. হাসান ফেরদাউস জুয়েল ও সাবেক সাধারন সম্পাদক এড. খোকন সাহার নাম লোক মুখে শুনা যাচ্ছে। তবে এ দুজনের মধ্যে এড. জুয়েলের অবস্থান তুলনা মূলক ভাবে মাঠে অবস্থান রয়েছেন।

এদিকে সাধারন সম্পাদক পদে সরকার সমর্থক আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের প্রার্থী হিসেবে সবচেয়ে বেশি যার নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন আইনজীবী সমিতির সাধারন সম্পাদক এড. হাবিল মুজাহিদ পলু, এড. মুহসিন মিয়া, এড. কামালের নামও শোনা যাচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওয়ামী লীগপন্থী একাধিক আইনজীবী যুগের চিন্তা ২৪ ডটকমকে জানান, আশা করছি আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে সভাপতি পদে অবশ্যই যোগ্য প্রার্থীকেই মনোনয়ন দেয়া হবে। তবে সাধারণ সম্পাদক পদকেও কম গুরুত্বপূর্ণ মনে করছেন না তারা।

তাই সাধারণ সম্পাদক পদে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তাদের মধ্যে এড. হাবিব আল মুজাহিদ পলু ও এড. মহসিনের তাৎপর বেশি। তবে দুইজনের মধ্যে এড. হাবিব আল মুজাহিদের সমর্থন বেশী বলে সমর্থন রয়েছে আদালত পাড়ায়। কারন বর্তমানের সাধারন সম্পাদকের পদে তিনি রয়েছেন।

অপরদিকে, অনেক আইনজীবীরা বলছেন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করেই বিএনপি সমর্থক প্রার্থী ঠিক করা হবে বলে জানা গেছে। যদি দলীয় প্রধান বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠকে বসা সম্ভব না হয় সেক্ষেত্রে বিএনপি পন্থী সিনিয়র আইনজীবীদের সমর্থনে কয়েকদিনের মধ্যে প্রার্থী ঘোষণা করা হতে পারে।

এদিকে বিএনপি থেকে সভাপতি পদে সিনিয়র আইনজীবী এড. জাকির হোসেন ছাড়াও এড. বারীর নাম শুনা যাচ্ছে। তবে এ নির্বাচনে সভাপতির পদে এড. জাকির হোসেনকেই মনোনয়ন দেওয়া হবে বলে অনেকেই ধারনা করছেন।

এদিকে সাধারন সম্পাদক পদ নিয়েও বিএনপিতে একাদিক প্রার্থীরা বিভিন্ন প্রচার প্রচরনা চালিয়ে যাচ্ছে। এদের মধ্যে আইনজীবী সমিতির সাবেক যুগ্ন সম্পাদক এড. আব্দুল হামিদ খান ভাসানী ভুইয়া। অপরদিকে সাবেক সহ-সভাপতি মশিউর রহমান শাহীন, এড. আজিজুর রহমান মোল্লা ও রফিকুল রহমান শিমুুল এর নাম লোকমুখে শুনা যাচ্ছে।

তবে এ নির্বাচনে বিএনপির আইনজীবী ফোরামের মধ্যে দু-গ্রুপের মধ্যে যতই দ্বন্দ্ব হোক না কেন নিজেদের দ্বন্দ্বের অবসান ঘটিয়ে এড. আজিজুর রহমান মোল্লাকেই দেওয়া হবে বলে অনেকেই আশাবাদী করছেন।

ট্যাগস :

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

জনপ্রিয় সংবাদ

সিদ্ধিরগঞ্জে মসজিদের বিরোধ নিস্পত্তি করায় হাজী ইয়াসিন মিয়ার বিরুদ্ধে অপবাদ

আইনজীবী সমিতির নির্বাচন : প্রার্থী বাছাইয়ে দুই দলেই নানা হিসেব নিকেশ

আপডেট সময় : ০৮:২৬:৪৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৯ ডিসেম্বর ২০১৭

আদালত পাড়ায় আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতার লড়াইয়ে মাঠে অবস্থান করছেন অনেকেই। এদের মধ্যে কেউ মুখ খুললেও অনেকেই গোপনে নির্বাচন করতে আগ্রহ প্রকাশ করছেন।

আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে প্রতিবারের মতো এবারও প্রতিদ্বন্দ্বিতার লড়াইয়ে মাঠে নামবেন মূলত দুটি দল একটি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সমর্থক সম্মিলিত আইনজীবী পরিষদ অপরদিকে বিএনপি জামায়াত সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদের প্যানেল।

এবারের নির্বাচনকে ঘিরে আদালতপাড়ায় দু’গ্রুপের মধ্যে চলছে আলোচনা সমালোচনার ঝড়। দুইটি প্যানেলই নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছে। এবার নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে কারা মাঠে অবস্থান করবেন সেটাই মূল আকর্ষণের বিষয়। নির্বাচনে শক্ত প্রার্থী দেয়ার পাশাপাশি নিজেদের অভ্যন্তরীণ কোন্দল কমিয়ে আনাসহ নানা উদ্যোগ গ্রহণ করে যেকোনো মূল্যে বিজয় ছিনিয়ে আনতে মাঠে রয়েছেন সরকার সমর্থক ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের আইনজীবীরা। এদিকে সংগঠনের পূর্ণ শক্তি ফিরে পেতে মরিয়া বিএনপি ও জামায়াতপন্থী আইনজীবীরা। নিজেদের কর্তৃত্ব দখলে নিতে দুই গ্রুপের আইনজীবীরাই আদালত পাড়ায় ব্যস্ত সময় পাড় করছেন।

জানা গেছে, আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে খারাপ ফলের কথা মাথায় রেখে সরকার সমর্থক আইনজীবীরা শক্ত প্রার্থী দেয়ার চিন্তাভাবনা করছে। সরকার সমর্থক আইনজীবী প্যানেলকে মোকাবেলা করে জয় ছিনিয়ে আনতে বিএনপি সমর্থক আইনজীবীরাও শক্ত প্রার্থীর কথাও ভাবছেন।

তারপরও এই নির্বাচনে প্রার্থী বাছাইয়ে কোন ধরনের ক্রটি যাতে না হয় সে বিষয়টি মাথায় রাখা হচ্ছে বলে সরকার সমর্থক আইনজীবী মত প্রকাশ করছেন।

অপরদিকে সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের প্রার্থী চূড়ান্ত নিয়ে চলছে নানা গুঞ্জন।
জানা গেছে, সরকার সমর্থক আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের প্যানেল থেকে সভাপতি পদে প্রার্থীরা হলেন সাবেক আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারন সম্পাদক এড. হাসান ফেরদাউস জুয়েল, এড. খোকন সাহা, এড. আসাদুজ্জামান, পিপি এড. ওয়াজেদ আলী খোকন।

তবে সভাপতি পদে যারা প্রার্থীতা পেতে পারেন তাদের মধ্যে আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারন সম্পাদক ও তাঁতী লীগের নারায়নগঞ্জ জেলার সভাপতি এড. হাসান ফেরদাউস জুয়েল ও সাবেক সাধারন সম্পাদক এড. খোকন সাহার নাম লোক মুখে শুনা যাচ্ছে। তবে এ দুজনের মধ্যে এড. জুয়েলের অবস্থান তুলনা মূলক ভাবে মাঠে অবস্থান রয়েছেন।

এদিকে সাধারন সম্পাদক পদে সরকার সমর্থক আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের প্রার্থী হিসেবে সবচেয়ে বেশি যার নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন আইনজীবী সমিতির সাধারন সম্পাদক এড. হাবিল মুজাহিদ পলু, এড. মুহসিন মিয়া, এড. কামালের নামও শোনা যাচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওয়ামী লীগপন্থী একাধিক আইনজীবী যুগের চিন্তা ২৪ ডটকমকে জানান, আশা করছি আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে সভাপতি পদে অবশ্যই যোগ্য প্রার্থীকেই মনোনয়ন দেয়া হবে। তবে সাধারণ সম্পাদক পদকেও কম গুরুত্বপূর্ণ মনে করছেন না তারা।

তাই সাধারণ সম্পাদক পদে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তাদের মধ্যে এড. হাবিব আল মুজাহিদ পলু ও এড. মহসিনের তাৎপর বেশি। তবে দুইজনের মধ্যে এড. হাবিব আল মুজাহিদের সমর্থন বেশী বলে সমর্থন রয়েছে আদালত পাড়ায়। কারন বর্তমানের সাধারন সম্পাদকের পদে তিনি রয়েছেন।

অপরদিকে, অনেক আইনজীবীরা বলছেন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করেই বিএনপি সমর্থক প্রার্থী ঠিক করা হবে বলে জানা গেছে। যদি দলীয় প্রধান বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠকে বসা সম্ভব না হয় সেক্ষেত্রে বিএনপি পন্থী সিনিয়র আইনজীবীদের সমর্থনে কয়েকদিনের মধ্যে প্রার্থী ঘোষণা করা হতে পারে।

এদিকে বিএনপি থেকে সভাপতি পদে সিনিয়র আইনজীবী এড. জাকির হোসেন ছাড়াও এড. বারীর নাম শুনা যাচ্ছে। তবে এ নির্বাচনে সভাপতির পদে এড. জাকির হোসেনকেই মনোনয়ন দেওয়া হবে বলে অনেকেই ধারনা করছেন।

এদিকে সাধারন সম্পাদক পদ নিয়েও বিএনপিতে একাদিক প্রার্থীরা বিভিন্ন প্রচার প্রচরনা চালিয়ে যাচ্ছে। এদের মধ্যে আইনজীবী সমিতির সাবেক যুগ্ন সম্পাদক এড. আব্দুল হামিদ খান ভাসানী ভুইয়া। অপরদিকে সাবেক সহ-সভাপতি মশিউর রহমান শাহীন, এড. আজিজুর রহমান মোল্লা ও রফিকুল রহমান শিমুুল এর নাম লোকমুখে শুনা যাচ্ছে।

তবে এ নির্বাচনে বিএনপির আইনজীবী ফোরামের মধ্যে দু-গ্রুপের মধ্যে যতই দ্বন্দ্ব হোক না কেন নিজেদের দ্বন্দ্বের অবসান ঘটিয়ে এড. আজিজুর রহমান মোল্লাকেই দেওয়া হবে বলে অনেকেই আশাবাদী করছেন।