নারায়ণগঞ্জ ০৬:৫৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রচারণায় নামলে কাউন্সিলর প্রার্থীকে খুনের হুমকি

  • প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:০২:২৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০২১
  • ৬৭ বার পড়া হয়েছে

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি :পরাজয়ের আবাস পেয়ে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে নাসিক তিন নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী শাহজালাল বাদল। একই ওয়ার্ডের প্রতিপক্ষ প্রার্থী আলমগীরের কর্মী সমর্থকদের মারধর করেছেন বাদল ও তার লোকজন। নির্বাচনি প্রচারণায় নামলে খুন করার হুমকি দিয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর একটায় নয়াআটি মুক্তিনগর এলাকায় এঘটনা ঘটনায় বাদল বাহিনী। এঘটনায় বাদলকে প্রধান অভিযুক্ত করে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছন আলমগীর।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, বৃহস্পতিবার দুপুর একটার দিকে নয়াআটি মুক্তিনগর এলাকায় কাউন্সিলর প্রার্থী আলমগীরের লোকজন পোষ্টার লাগাচ্ছিলেন। এসময় প্রতিপক্ষ প্রার্থী বাদল ও তার অন্যতম সহযোগী তাহেরুলের নেতৃত্বে চাইনিজ কুড়াল, চাপাতি, দা ও লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালায়। তারা আলমগীরের কর্মীদের মারধর ও পোষ্টার ছিঁড়ে ফেলে। এসময় হুমকি দেয় যে, নির্বাচনি প্রচারণায় নামলে খুন করে ফেলবে।

কাউন্সিলর প্রার্থী আলমগীর অভিযোগ জানায়, নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত দেওয়ার পর থেকেই বাদল আমাকে হুমকি দিয়ে আসছে নির্বাচন না করার জন্য। নির্বাচন করলে আমাকে দেখে নিবে। তার হুমকি ধমকি উপেক্ষা করে আমি মনোনয়নপত্র দাখিল করি। তখন মনোনয়ন প্রত্যাহার করার চেষ্টা চালায়। তার হুমকি উপেক্ষা করে নির্বাচন কারর সিদ্ধান্ধে আটল থাকি। গত ২৮ ডিসেম্বর আমি প্রতীক পাই লাটিম। আর বাদল পায় ঠেলাগাড়ি। আলমগীর বলেন, আমার জনপ্রিয়তা দেখে ঈর্ষান্নিত হয়ে হুমকি ধমকি ও হামলা মারধর করে আমাকে নির্বাচন থেকে দূরে সরিয়ে রাখতে এঘটনা ঘটিয়েছে বাদল।

এবিষয়ে জানতে বাদলকে ফোন করলে রিং হলেও রিসিভ করেননি।

অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা উপপরিদর্শক মো: বিল্লাল হোসেন জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ট্যাগস :

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

জনপ্রিয় সংবাদ

প্রচারণায় নামলে কাউন্সিলর প্রার্থীকে খুনের হুমকি

আপডেট সময় : ১২:০২:২৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০২১

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি :পরাজয়ের আবাস পেয়ে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে নাসিক তিন নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী শাহজালাল বাদল। একই ওয়ার্ডের প্রতিপক্ষ প্রার্থী আলমগীরের কর্মী সমর্থকদের মারধর করেছেন বাদল ও তার লোকজন। নির্বাচনি প্রচারণায় নামলে খুন করার হুমকি দিয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর একটায় নয়াআটি মুক্তিনগর এলাকায় এঘটনা ঘটনায় বাদল বাহিনী। এঘটনায় বাদলকে প্রধান অভিযুক্ত করে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছন আলমগীর।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, বৃহস্পতিবার দুপুর একটার দিকে নয়াআটি মুক্তিনগর এলাকায় কাউন্সিলর প্রার্থী আলমগীরের লোকজন পোষ্টার লাগাচ্ছিলেন। এসময় প্রতিপক্ষ প্রার্থী বাদল ও তার অন্যতম সহযোগী তাহেরুলের নেতৃত্বে চাইনিজ কুড়াল, চাপাতি, দা ও লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালায়। তারা আলমগীরের কর্মীদের মারধর ও পোষ্টার ছিঁড়ে ফেলে। এসময় হুমকি দেয় যে, নির্বাচনি প্রচারণায় নামলে খুন করে ফেলবে।

কাউন্সিলর প্রার্থী আলমগীর অভিযোগ জানায়, নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত দেওয়ার পর থেকেই বাদল আমাকে হুমকি দিয়ে আসছে নির্বাচন না করার জন্য। নির্বাচন করলে আমাকে দেখে নিবে। তার হুমকি ধমকি উপেক্ষা করে আমি মনোনয়নপত্র দাখিল করি। তখন মনোনয়ন প্রত্যাহার করার চেষ্টা চালায়। তার হুমকি উপেক্ষা করে নির্বাচন কারর সিদ্ধান্ধে আটল থাকি। গত ২৮ ডিসেম্বর আমি প্রতীক পাই লাটিম। আর বাদল পায় ঠেলাগাড়ি। আলমগীর বলেন, আমার জনপ্রিয়তা দেখে ঈর্ষান্নিত হয়ে হুমকি ধমকি ও হামলা মারধর করে আমাকে নির্বাচন থেকে দূরে সরিয়ে রাখতে এঘটনা ঘটিয়েছে বাদল।

এবিষয়ে জানতে বাদলকে ফোন করলে রিং হলেও রিসিভ করেননি।

অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা উপপরিদর্শক মো: বিল্লাল হোসেন জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।