১২ বছর আত্মগোপনে থেকেও শেষ রক্ষা হলো না আওয়ামী লীগ নেতা নান্নু হত্যা মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামী ইউনুসের

ডাকাতি, বিস্ফোরক ও চাঞ্চল্যকর আওয়ামী লীগ নেতা নান্নু হত্যা মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি ইউনুস ডাকাতকে (৪৫) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের এন্টি টেররিজমের ( এটিইউ) ইউনিট। সোমবার মধ্যরাতে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার শিকদার বাজার এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে এলিট ফোর্সটি। ওই রাতেই ইউনুছ আলীকে আড়াইহাজার থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ পুলিশের এন্টি টেরিজম ইউনিটের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তি এ তথ্য জানানো হয়। গ্রেপ্তার ইউনুস উপজেলা ব্রাহ্মন্দী গ্রামের আবুল বাশার বাদশা মিয়ার ছেলে।

আড়াইহাজার থানার ওসি আনিচুর রহমান মোল্লা জানান, ইউনুস আন্তজেলা ডাকাত দলের সদস্য। সে আড়াইহাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় ডাকাতি করে মানুষের রাতের ঘুম কেড়ে নিত। ২০০০ সালের ২১ মে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা নান্নু বাড়িতে ডাকাতি করতে যায়। ওই সময় নান্নুকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাকে হত্যা করে। এ ব্যাপরে আড়াইহাজার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়েয়ের (মামলা নং ২৬ তারিখ ২১-৫-২০০০) পর তার যাবজ্জীবন সাজা হলে সে আত্মগোপনে চলে যায়।

পরবর্তীতে সে ফতুল্লা এলাকায় নাম পরিবর্তন করে ইউসুফ নাম ধারণ করে অটো চালাতে থাকে। মাঝে মাঝে এলাকায় এসে ডাকাতি করে পালিয়ে যেত। এন্টি টেরিজম ইউনিটের একটি চৌকস দল মঙ্গলবার রাতে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে তাকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়। তার বিরুদ্ধে থানায় ডাকাতি, হত্যা, বিস্ফোরক, প্রতারণাসহ ছয়টি মামলার গ্রেফতারী পরোয়ানা রয়েছে। তাকে গ্রেফতারে জনমনে স্বস্তি ফিরে এসেছে।