নারায়ণগঞ্জ ১১:২৬ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
সিদ্ধিরগঞ্জে মসজিদের বিরোধ নিস্পত্তি করায় হাজী ইয়াসিন মিয়ার বিরুদ্ধে অপবাদ সিদ্ধিরগঞ্জে ব্যবসায়ীর উপর হামলার ঘটনায় সন্ত্রাসী পানি আক্তারের বিরুদ্ধে মামলা সিদ্ধিরগঞ্জে অটোরিকশার ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী নাঈম নিহত সিদ্ধিরগঞ্জে জমি দখল করতে সজু বাহিনীর হামলা আদমজী ইপিজেডের ব্যবসা ছিনিয়ে নিতে আক্তার বাহিনীর হামলায় আহত-২ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ন সম্পাদক হওয়ায় সিদ্ধিরগঞ্জে দেলোয়ারকে সংবর্ধনা ডিসিদের প্রতি ২৫ নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রী আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি পবিত্র শবে মেরাজ সিদ্ধিরগঞ্জে ডিবি পরিচয়ে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে গ্রেফতার ৬ সিদ্ধিরগঞ্জে অভিযানে  ৩ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা ভোক্তা অধিকার

সিদ্ধিরগঞ্জে অবৈধ ফ্যামিলি ল্যাব হসপিটালে র‌্যাবের অভিযান : ভূয়া ডাক্তারকে কারাদন্ড : হসপিটাল সিলগালা

  • প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৪:২৬:৫৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ এপ্রিল ২০১৯
  • ২৮৯ বার পড়া হয়েছে

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি : সিদ্ধিরগঞ্জের সাইনবোর্ডস্থ ফ্যামিলি ল্যাব হসপিটালে র‌্যাবের ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান। এমবিবিএস পরিচয়দানকারী ভূয়া ডাক্তার মো: নূরুল ইসলাম শেখকে(২৭) গ্রেফতার করে ১ বছরের কারাদন্ড। হসপিটাল সিলাগালা করে দিয়েছেন ভ্রাম্যমান আদলতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো: আনিসুল ইসলাম। মঙ্গলবার(২ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৭ টায় এ অভিযান চালায় র‌্যাব।
আদমজীতে অবস্থিত র‌্যাব-১১ সিপিএসসির কোম্পানি অধিনায়ক তালুকদার নাজমুল সাকিব জানায়, সরকারি প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ছাড়াই সিদ্ধিরগঞ্জের সাইনবোর্ড সামাদবানু কমপ্লেক্স টাওয়ারের দ্বিতীয় তলায় ফ্যামিলি ল্যাব হমপিটাল লিমিটেড নামে একটি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান চিকিৎসার নামে রোগীদের সাথে প্রতারনা করছে। এমন তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাবের একটি দল সহকারী কমিশনার(ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মো: আনিসুল ইসলামের উপস্থিতিতে অভিযান পরিচালনা করেন। এসময় এমবিবিএস ডাক্তার পরিচয় দিয়ে রোগীদের চিকিৎসা করার সময় মো: নূরুল ইসলাম শেখকে হাতে নাতে গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসা বাদে নূরুল ইসলাম জানায় তিনি একজন মেডিকেল এসিসটেন্ট হয়ে এমবিবিএস পরিচয় দিয়ে ওই হসপিটালে ২ বছর ধরে রোগীদের সাথে প্রতারনা করে আসছে। সে তার অপরাধ স্বীকার করায় ভ্রাম্যমান আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট তাকে ১ বছরের কারাদন্ড প্রদান করেন। সাজাপ্রাপ্ত ভূয়া ডাক্তার নূরুল ইসলাম শেখ সিরাজগঞ্জ জেলা সদর থানার বিলগজারিয়া এলাকার সানাউল্লাহ শেখের ছেলে।
নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো: আনিসুল ইসলাম জানান, ফ্যামিলি ল্যাব হসপিটাল লিমিটেড কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় কোন কাগজপত্র দেখাতে পারেনি। তাছাড়া ওই হসপিটালে সয়া নামে একটি পণ্য উৎপাদন করা হচ্ছে। যা পুষ্টিকর ও সেক্সসোয়াল হিসেবে বিক্রি করা হচ্ছে। হসপিটালের পরিবেশ অত্যন্ত নোংরা। অপরেশন থিয়েটারের অবস্থা নাজুক। প্রয়োজনীয় কোন চিকিৎসা সরঞ্জাম নেই। অবৈধ ভাবে হসপিটালটি পরিচালিত হচ্ছে। ফলে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ ও মেডিকেল ডেন্টাল কাউন্সিল আইনে ভূয়া ডাক্তার নূরুল ইসলাম শেখকে ১ বছরের কারাদন্ড ও হসপিটাল সিলগালা করে দেওয়া হয়েছে। তিনি আরো জানান, অবৈধ ভাবে হসপিটাল পরিচালনা করার অভিযুগে মালিকের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা দায়ের করা হবে।
জানা গেছে, ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক সরেজমিন পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক মো: বেলাল হোসেন ভূইয়া অবৈধ ভাবে ফ্যামিলি ল্যাব হসপিটাল গড়ে তুলেছেন। চিকিৎসার নামে প্রতারনা সহ নানা অপকর্ম চলছিল এই হসপিটালে। স্থানীয় একশ্রেণীর প্রভাবশালী ব্যক্তিদের ম্যানেজ করে বেলাল দীর্ঘদিন ধরে চিকিৎসার নামে প্রতারনা করছিল। বেলাল হোসেন বি-বাড়ীয়া জেলার কসবা থানার গোপিনাথপুর উত্তর পাড়ার মৃত কাজী ইসমাইল ভূঁইয়ার ছেলে।২০১৭ সালের ২৪  ফেব্রুয়ারি মাসে গনমাধ্যমের কয়েকজন কর্মী ওই হাসপাতালের অবৈধ কর্মকান্ড নিয়ে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন তৈরীর লক্ষ্যে সেখানে গেলে তাদেরকে আটকে রেখে পুলিশ প্রশাসনকে প্রভাবিত করে সাজানো মামলা দিয়ে হয়রানী করে। মামলাটি এখনও আদালতে চলমান রযেছে।

ট্যাগস :

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

জনপ্রিয় সংবাদ

সিদ্ধিরগঞ্জে মসজিদের বিরোধ নিস্পত্তি করায় হাজী ইয়াসিন মিয়ার বিরুদ্ধে অপবাদ

সিদ্ধিরগঞ্জে অবৈধ ফ্যামিলি ল্যাব হসপিটালে র‌্যাবের অভিযান : ভূয়া ডাক্তারকে কারাদন্ড : হসপিটাল সিলগালা

আপডেট সময় : ০৪:২৬:৫৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ এপ্রিল ২০১৯

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি : সিদ্ধিরগঞ্জের সাইনবোর্ডস্থ ফ্যামিলি ল্যাব হসপিটালে র‌্যাবের ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান। এমবিবিএস পরিচয়দানকারী ভূয়া ডাক্তার মো: নূরুল ইসলাম শেখকে(২৭) গ্রেফতার করে ১ বছরের কারাদন্ড। হসপিটাল সিলাগালা করে দিয়েছেন ভ্রাম্যমান আদলতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো: আনিসুল ইসলাম। মঙ্গলবার(২ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৭ টায় এ অভিযান চালায় র‌্যাব।
আদমজীতে অবস্থিত র‌্যাব-১১ সিপিএসসির কোম্পানি অধিনায়ক তালুকদার নাজমুল সাকিব জানায়, সরকারি প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ছাড়াই সিদ্ধিরগঞ্জের সাইনবোর্ড সামাদবানু কমপ্লেক্স টাওয়ারের দ্বিতীয় তলায় ফ্যামিলি ল্যাব হমপিটাল লিমিটেড নামে একটি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান চিকিৎসার নামে রোগীদের সাথে প্রতারনা করছে। এমন তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাবের একটি দল সহকারী কমিশনার(ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মো: আনিসুল ইসলামের উপস্থিতিতে অভিযান পরিচালনা করেন। এসময় এমবিবিএস ডাক্তার পরিচয় দিয়ে রোগীদের চিকিৎসা করার সময় মো: নূরুল ইসলাম শেখকে হাতে নাতে গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসা বাদে নূরুল ইসলাম জানায় তিনি একজন মেডিকেল এসিসটেন্ট হয়ে এমবিবিএস পরিচয় দিয়ে ওই হসপিটালে ২ বছর ধরে রোগীদের সাথে প্রতারনা করে আসছে। সে তার অপরাধ স্বীকার করায় ভ্রাম্যমান আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট তাকে ১ বছরের কারাদন্ড প্রদান করেন। সাজাপ্রাপ্ত ভূয়া ডাক্তার নূরুল ইসলাম শেখ সিরাজগঞ্জ জেলা সদর থানার বিলগজারিয়া এলাকার সানাউল্লাহ শেখের ছেলে।
নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো: আনিসুল ইসলাম জানান, ফ্যামিলি ল্যাব হসপিটাল লিমিটেড কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় কোন কাগজপত্র দেখাতে পারেনি। তাছাড়া ওই হসপিটালে সয়া নামে একটি পণ্য উৎপাদন করা হচ্ছে। যা পুষ্টিকর ও সেক্সসোয়াল হিসেবে বিক্রি করা হচ্ছে। হসপিটালের পরিবেশ অত্যন্ত নোংরা। অপরেশন থিয়েটারের অবস্থা নাজুক। প্রয়োজনীয় কোন চিকিৎসা সরঞ্জাম নেই। অবৈধ ভাবে হসপিটালটি পরিচালিত হচ্ছে। ফলে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ ও মেডিকেল ডেন্টাল কাউন্সিল আইনে ভূয়া ডাক্তার নূরুল ইসলাম শেখকে ১ বছরের কারাদন্ড ও হসপিটাল সিলগালা করে দেওয়া হয়েছে। তিনি আরো জানান, অবৈধ ভাবে হসপিটাল পরিচালনা করার অভিযুগে মালিকের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা দায়ের করা হবে।
জানা গেছে, ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক সরেজমিন পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক মো: বেলাল হোসেন ভূইয়া অবৈধ ভাবে ফ্যামিলি ল্যাব হসপিটাল গড়ে তুলেছেন। চিকিৎসার নামে প্রতারনা সহ নানা অপকর্ম চলছিল এই হসপিটালে। স্থানীয় একশ্রেণীর প্রভাবশালী ব্যক্তিদের ম্যানেজ করে বেলাল দীর্ঘদিন ধরে চিকিৎসার নামে প্রতারনা করছিল। বেলাল হোসেন বি-বাড়ীয়া জেলার কসবা থানার গোপিনাথপুর উত্তর পাড়ার মৃত কাজী ইসমাইল ভূঁইয়ার ছেলে।২০১৭ সালের ২৪  ফেব্রুয়ারি মাসে গনমাধ্যমের কয়েকজন কর্মী ওই হাসপাতালের অবৈধ কর্মকান্ড নিয়ে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন তৈরীর লক্ষ্যে সেখানে গেলে তাদেরকে আটকে রেখে পুলিশ প্রশাসনকে প্রভাবিত করে সাজানো মামলা দিয়ে হয়রানী করে। মামলাটি এখনও আদালতে চলমান রযেছে।