নারায়ণগঞ্জ ০৭:৫৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
সোনারগাঁওয়ে কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত সিদ্ধিরগঞ্জে ৪টি কারখানার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন হারামের পয়সা ব্যারামে খায় ,আমি হারাম খাই না খেতেও দেই না-সেলিম ওসমান ভূমি সম্পর্কিত সমস্যা থাকলে গণশুনানিতে আসার আহবান- না.গঞ্জে জেলা  প্রশাসক সিদ্ধিরগঞ্জে গ্যাসের দাবিতে ঢাকা-চটগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ সোনারগাঁওয়ে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০২৪ অনুষ্ঠিত র‌্যাব পরিচয়ে ৫২ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় গ্রেফতার-৪ সিদ্ধিরগঞ্জে কাতার প্রবাসীর বাড়িতে ডাকাতি চিকিৎসার নামে কোনো প্রকার হয়রানি মেনে নেওয়া হবে না ঃ স্বাস্থ্যমন্ত্রী নাসিকের ময়লার গাড়ির ধাক্কায় গর্ভবতীর পোশাক শ্রমিক নিহত

আমি আপনাদের ঘুম থেকে ওঠাতে এসেছি: শামীম ওসমান

  • প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:১৭:০৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৫ ডিসেম্বর ২০২৩
  • ১৭৬ বার পড়া হয়েছে

মো. আকবর হোসেন : নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী এ কে এম শামীম ওসমান বলেছেন, আমি আপনাদের ঘুম থেকে ওঠাতে এসেছি। একটু জাগেন। আপনারা হয়তো অনেক খবর রাখছেন না। কী হচ্ছে, কী হতে যাচ্ছে। তাই আপনারা ঘুমের মধ্যে আছেন। এই ঘুমের মধ্যে কিছু একটা হচ্ছে এদেশে। তাই আমি রাস্তায় ঘুরছি। আমি জানি আমার কোনো শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী নেই। তবুও আমি খাটছি কেন, আমি একটা মেসেজ দিতে চাচ্ছি।

সোমবার (২৫ ডিসেম্বর) বিকেলে ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সম্পাদক ফরিদ আহম্মেদ লিটনের সভাপত্বিতে ফতুল্লা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন নির্বাচনী সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে এসব কথা বলেন তিনি।

শামীম ওসমান বলেন, ত্রিশ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে দেশটা স্বাধীন হয়েছে। কোন বাড়িতে সুন্দরী মেয়ে ছিল পাকিস্তানিরা জানত না। এই জামায়াত এগুলো চিনিয়ে দিয়েছে। তাদের নিয়েই বিএনপি মাঠে নেমেছে। ৩০ লাখ মানুষের রক্ত দিয়ে এ দেশটা স্বাধীন করা হলো।

শামীম ওসমান আরও বলেন, আমি এ পর্যন্ত কোথাও যেয়ে বলিনি আমাকে ভোট দেন। আমি মনে করি আমি যতটুকু বুঝি আপনি তার চেয়ে কম বোঝেন না। আমি রাজনীতিতে ধান্ধা করতে আসিনি। রাজনীতিবিদরা যদি সত্যি না বলে তাহলে কথা বলা উচিত না। আর সাংবাদিকেরা যদি সত্যি লিখতে না পারে তাহলে লেখা উচিত না।

এর আগে বিকেলে ফতুল্লার পিলকুনি পাঁচতলা এলাকায় অপর এক নির্বাচনী উঠান বৈঠকে তিনি জনতার উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, এবারের ভোট ১৯৭০ সালের স্বাধীনতা সংগ্রামের ভোটের চেয়ে কোনো অংশে কম না। একটা ঈগল পাখি আকাশে একুশ দিন উড়তে পারে। ওর টার্গেট যে কেউ হতে পারে। যখন ও বুঝবে ওর রিস্ক হবে না তখন ছোঁ মেরে শিকার নিয়ে নেবে। আমাদের মানচিত্রের উপর ঈগল ঘুরছে, তারা ওৎ পেতে আছে। ওরা চায় ফিলিস্তিনের গাজার মতো দেশটাকে বানাতে । যারা ফিলিস্তিনে মুসলমানদের পুড়িয়ে মারা হচ্ছে, সেটা দেখে না; আমাদের দেশে মানবাধিকার চায়।

শামীম ওসমান বলেন, আমি মনে করি সমস্যা আমার না, আপনার সমস্যা। এসব নাটক আমিও জানি, আমি নাটক করি না। আপনাদের বুঝতে হবে কোন ধরনের প্রার্থী নিবেন। আপনারা সবকিছু দেখে শুনে কেনেন। আর পাঁচ বছর আপনার ভয়েস যে পার্লামেন্টে তুলে ধরবে সেটাও আপনার দেখা উচিত। আপনি যদি ফল গাছ লাগান সেটা কী নিজে নিজে বড় হবে? যত্ন নিতে হবে। ফুলের গাছ লাগালেও যত্ন নিতে হবে। আর যদি এ জায়গাটা আপনি পাঁচ বছরের জন্য বন্ধ করে দেন। এসে কী দেখবেন, এখানে জঙ্গল হয়ে যায়। সেখানে কাঁটা গাছ থাকবে সাপ আসবে। সেখানে ঢুকলেন তখন কী হবে, হয় কাঁটার আঁচড়ে আপনার পা কাঁটবে নয়ত সাপের কামড়ে মারা যাবেন।

উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে শামীম ওসমান বলেন, আমরা ৬৫০ কোটি টাকার শুধু রাস্তা করেছি এই এলাকায়। আরও কাজ আছে পাইপলাইনে। স্কুল করেছি, এখানে শেখ কামাল আইটি ইনস্টিটিউট হবে। অনেকের পরিবারে আছে বিদেশে কাজ করে। সে বেতন পায় বিশ হাজার টাকা। নেপালে আরেক লোক যায় সে পায় আশি হাজার টাকা। কারণ, তার কাছে সার্টিফিকেট আছে। সেটা মাথায় রেখে আমরা টেকনিক্যাল কলেজ করছি। এখানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু বিশ্ববিদ্যালয় হবে, পাঁচশ শয্যা বিশিষ্ট মেডিকেল কলেজ হবে।

তিনি আরও বলেন ফতুল্লায় অনেক রাস্তায় সংস্কারের প্রয়োজন আছে। আপনাদের যে সমস্যা হচ্ছে তা আমি জানি। ইনশাল্লাহ নির্বাচনে জয়ী হলে আগামী ৬ মাসের মধ্যে ফতুল্লায় রাস্তার সমস্যা দূর হবে।

ট্যাগস :

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

সোনারগাঁওয়ে কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত

আমি আপনাদের ঘুম থেকে ওঠাতে এসেছি: শামীম ওসমান

আপডেট সময় : ১১:১৭:০৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৫ ডিসেম্বর ২০২৩

মো. আকবর হোসেন : নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী এ কে এম শামীম ওসমান বলেছেন, আমি আপনাদের ঘুম থেকে ওঠাতে এসেছি। একটু জাগেন। আপনারা হয়তো অনেক খবর রাখছেন না। কী হচ্ছে, কী হতে যাচ্ছে। তাই আপনারা ঘুমের মধ্যে আছেন। এই ঘুমের মধ্যে কিছু একটা হচ্ছে এদেশে। তাই আমি রাস্তায় ঘুরছি। আমি জানি আমার কোনো শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী নেই। তবুও আমি খাটছি কেন, আমি একটা মেসেজ দিতে চাচ্ছি।

সোমবার (২৫ ডিসেম্বর) বিকেলে ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সম্পাদক ফরিদ আহম্মেদ লিটনের সভাপত্বিতে ফতুল্লা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন নির্বাচনী সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে এসব কথা বলেন তিনি।

শামীম ওসমান বলেন, ত্রিশ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে দেশটা স্বাধীন হয়েছে। কোন বাড়িতে সুন্দরী মেয়ে ছিল পাকিস্তানিরা জানত না। এই জামায়াত এগুলো চিনিয়ে দিয়েছে। তাদের নিয়েই বিএনপি মাঠে নেমেছে। ৩০ লাখ মানুষের রক্ত দিয়ে এ দেশটা স্বাধীন করা হলো।

শামীম ওসমান আরও বলেন, আমি এ পর্যন্ত কোথাও যেয়ে বলিনি আমাকে ভোট দেন। আমি মনে করি আমি যতটুকু বুঝি আপনি তার চেয়ে কম বোঝেন না। আমি রাজনীতিতে ধান্ধা করতে আসিনি। রাজনীতিবিদরা যদি সত্যি না বলে তাহলে কথা বলা উচিত না। আর সাংবাদিকেরা যদি সত্যি লিখতে না পারে তাহলে লেখা উচিত না।

এর আগে বিকেলে ফতুল্লার পিলকুনি পাঁচতলা এলাকায় অপর এক নির্বাচনী উঠান বৈঠকে তিনি জনতার উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, এবারের ভোট ১৯৭০ সালের স্বাধীনতা সংগ্রামের ভোটের চেয়ে কোনো অংশে কম না। একটা ঈগল পাখি আকাশে একুশ দিন উড়তে পারে। ওর টার্গেট যে কেউ হতে পারে। যখন ও বুঝবে ওর রিস্ক হবে না তখন ছোঁ মেরে শিকার নিয়ে নেবে। আমাদের মানচিত্রের উপর ঈগল ঘুরছে, তারা ওৎ পেতে আছে। ওরা চায় ফিলিস্তিনের গাজার মতো দেশটাকে বানাতে । যারা ফিলিস্তিনে মুসলমানদের পুড়িয়ে মারা হচ্ছে, সেটা দেখে না; আমাদের দেশে মানবাধিকার চায়।

শামীম ওসমান বলেন, আমি মনে করি সমস্যা আমার না, আপনার সমস্যা। এসব নাটক আমিও জানি, আমি নাটক করি না। আপনাদের বুঝতে হবে কোন ধরনের প্রার্থী নিবেন। আপনারা সবকিছু দেখে শুনে কেনেন। আর পাঁচ বছর আপনার ভয়েস যে পার্লামেন্টে তুলে ধরবে সেটাও আপনার দেখা উচিত। আপনি যদি ফল গাছ লাগান সেটা কী নিজে নিজে বড় হবে? যত্ন নিতে হবে। ফুলের গাছ লাগালেও যত্ন নিতে হবে। আর যদি এ জায়গাটা আপনি পাঁচ বছরের জন্য বন্ধ করে দেন। এসে কী দেখবেন, এখানে জঙ্গল হয়ে যায়। সেখানে কাঁটা গাছ থাকবে সাপ আসবে। সেখানে ঢুকলেন তখন কী হবে, হয় কাঁটার আঁচড়ে আপনার পা কাঁটবে নয়ত সাপের কামড়ে মারা যাবেন।

উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে শামীম ওসমান বলেন, আমরা ৬৫০ কোটি টাকার শুধু রাস্তা করেছি এই এলাকায়। আরও কাজ আছে পাইপলাইনে। স্কুল করেছি, এখানে শেখ কামাল আইটি ইনস্টিটিউট হবে। অনেকের পরিবারে আছে বিদেশে কাজ করে। সে বেতন পায় বিশ হাজার টাকা। নেপালে আরেক লোক যায় সে পায় আশি হাজার টাকা। কারণ, তার কাছে সার্টিফিকেট আছে। সেটা মাথায় রেখে আমরা টেকনিক্যাল কলেজ করছি। এখানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু বিশ্ববিদ্যালয় হবে, পাঁচশ শয্যা বিশিষ্ট মেডিকেল কলেজ হবে।

তিনি আরও বলেন ফতুল্লায় অনেক রাস্তায় সংস্কারের প্রয়োজন আছে। আপনাদের যে সমস্যা হচ্ছে তা আমি জানি। ইনশাল্লাহ নির্বাচনে জয়ী হলে আগামী ৬ মাসের মধ্যে ফতুল্লায় রাস্তার সমস্যা দূর হবে।