নারায়ণগঞ্জ ০৭:৫৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
রিয়াদে Dxnএর আয়োজনে আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবস পালন ও সেমিনার অনুষ্ঠিত ইসদাইরে অবৈধ ক্যাবল অপারেটর ব্যবসার বিরুদ্ধে অভিযান,অফিস সীলগালা চাষাড়ায় মাতৃভাষা দিবসে বইমেলার উদ্বোধন নারায়ণগঞ্জে কারাগারে সাংবাদিক হত্যাকারির আত্নহত্যা চৌধুরীগাঁও উচ্চ বিদ্যালয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন অস্ত্র মামলায় মিশনপাড়ার নাজমুলকে ১০ বছরের কারাদণ্ড বন্দরে এক রোহিঙ্গা যুবককে ৪হাজার ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে জামানত ১ লাখ টাকা ফতুল্লার ক্লু-লেস হত্যার রহস্য উদঘাটনসহ প্রধান আসামিকে গ্রেফতার র‌্যাব-১১ বানিজ্য মেলায় দর্শনার্থীদের সেবা দিতে ডিকেএমসি হাসপাতালের অধ্যাপক ডাক্তার এম এ কাশেম

গণটিকা নিয়ে অব্যবস্থাপনা ও বিশৃঙ্খলা বন্ধ করুন : বাংলাদেশ ন্যাপ

  • প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৬:২৩:২২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১১ অগাস্ট ২০২১
  • ৯৯ বার পড়া হয়েছে

বিশেষ প্রতিনিধি : গণটিকা নিয়ে সমন্বয়হীনতার কারণে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। এতে জনগণকে চরম ভোগান্তি ও ঝুঁকিপূর্ণ পরিস্থিতির মুখে পড়তে হচ্ছে। গণটিকা কার্যক্রমে অব্যবস্থাপনা ও বিশৃঙ্খলা বন্ধ, হাসপাতালগুলোতে লোকবল ও চিকিৎসা সামগ্রীর সংকট দূর করার আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ।

বুধবার (১১ আগষ্ট) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে পার্টির চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া এ আহ্বান জানান।

তারা বলেন, গণটিকা দান কর্মসূচিতে দেশে বিভিন্ন স্থানে অব্যবস্থাপনা ও বিশৃঙ্খলার যে চিত্র পরিলক্ষিত হচ্ছে তাতে মনে হচ্ছে এ বিষয়ে যথাযথ প্রস্তুতির যথেষ্ট অভাব রয়েছে। টিকা দিতে গিয়ে মানুষ অবর্ননীয় দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে। কেউ কেই দু’ তিন দিন কেন্দ্রে গিয়েও টিকা পাচ্ছে না। গণটিকা দান কর্মসূচির ক্ষেত্রে বিরাজমান এসব অব্যবস্থাপনা ও বিশৃঙ্খলা দূর করে অবিলম্বে সকল নাগরিকের জন্য মানসম্পন্ন করোনা টিকা নিশ্চিত করা সময়ের দাবী।

নেতৃদ্বয় বলেন, অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে সরকার জনগণের জীবন নিয়ে তামাশা করছে। সরকারি হিসাব মতে, যেখানে ২৬ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন প্রয়োজন সেখানে তারা সোয়া কোটি ডোজ টিকা নিয়ে কর্মসূচির নামের আগে ‘গণ’ জুড়ে দিয়েছে। পরিস্থিতি প্রমান করছে টিকা ও গণটিকা নিয়ে সরকারের কোনও পরিকল্পনা নেই। তাই, অপরিকল্পিত এই গণটিকা কর্মসূচি বুমেরাং হতে পারে।

তারা বলেন, গণটিকা কর্মসূচিতে স্বাস্থ্যবিধি পালনের কোন বালাই নাই, ফলে আরও ভয়াবহ রূপে ছড়িয়ে পড়তে পারে। অনেক অসুস্থ ও বৃদ্ধ মানুষ লাইনে দাঁড়িয়ে রোদে পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজে নানা হয়রানির শিকার হয়েও টিকা পায়নি। আবার প্রয়োজন অনুযায়ী টিকা সংগ্রহ করতে না পারলে, গণটিকা কর্মসূচি আবারও মুখ থুবড়ে পড়তে পারে।

ট্যাগস :

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

জনপ্রিয় সংবাদ

রিয়াদে Dxnএর আয়োজনে আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবস পালন ও সেমিনার অনুষ্ঠিত

গণটিকা নিয়ে অব্যবস্থাপনা ও বিশৃঙ্খলা বন্ধ করুন : বাংলাদেশ ন্যাপ

আপডেট সময় : ০৬:২৩:২২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১১ অগাস্ট ২০২১

বিশেষ প্রতিনিধি : গণটিকা নিয়ে সমন্বয়হীনতার কারণে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। এতে জনগণকে চরম ভোগান্তি ও ঝুঁকিপূর্ণ পরিস্থিতির মুখে পড়তে হচ্ছে। গণটিকা কার্যক্রমে অব্যবস্থাপনা ও বিশৃঙ্খলা বন্ধ, হাসপাতালগুলোতে লোকবল ও চিকিৎসা সামগ্রীর সংকট দূর করার আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ।

বুধবার (১১ আগষ্ট) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে পার্টির চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া এ আহ্বান জানান।

তারা বলেন, গণটিকা দান কর্মসূচিতে দেশে বিভিন্ন স্থানে অব্যবস্থাপনা ও বিশৃঙ্খলার যে চিত্র পরিলক্ষিত হচ্ছে তাতে মনে হচ্ছে এ বিষয়ে যথাযথ প্রস্তুতির যথেষ্ট অভাব রয়েছে। টিকা দিতে গিয়ে মানুষ অবর্ননীয় দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে। কেউ কেই দু’ তিন দিন কেন্দ্রে গিয়েও টিকা পাচ্ছে না। গণটিকা দান কর্মসূচির ক্ষেত্রে বিরাজমান এসব অব্যবস্থাপনা ও বিশৃঙ্খলা দূর করে অবিলম্বে সকল নাগরিকের জন্য মানসম্পন্ন করোনা টিকা নিশ্চিত করা সময়ের দাবী।

নেতৃদ্বয় বলেন, অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে সরকার জনগণের জীবন নিয়ে তামাশা করছে। সরকারি হিসাব মতে, যেখানে ২৬ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন প্রয়োজন সেখানে তারা সোয়া কোটি ডোজ টিকা নিয়ে কর্মসূচির নামের আগে ‘গণ’ জুড়ে দিয়েছে। পরিস্থিতি প্রমান করছে টিকা ও গণটিকা নিয়ে সরকারের কোনও পরিকল্পনা নেই। তাই, অপরিকল্পিত এই গণটিকা কর্মসূচি বুমেরাং হতে পারে।

তারা বলেন, গণটিকা কর্মসূচিতে স্বাস্থ্যবিধি পালনের কোন বালাই নাই, ফলে আরও ভয়াবহ রূপে ছড়িয়ে পড়তে পারে। অনেক অসুস্থ ও বৃদ্ধ মানুষ লাইনে দাঁড়িয়ে রোদে পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজে নানা হয়রানির শিকার হয়েও টিকা পায়নি। আবার প্রয়োজন অনুযায়ী টিকা সংগ্রহ করতে না পারলে, গণটিকা কর্মসূচি আবারও মুখ থুবড়ে পড়তে পারে।