নারায়ণগঞ্জ ০৫:৪০ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নাসিকের ১১নং ওয়ার্ডে চুরি হওয়া রড উদ্ধার, চোরকে গণধোলায়ে মুক্তি

  • প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:১৫:৫৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১
  • ৩৩ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিনিধি; বহস্পতিবার (২৪ জুন) সকাল ১১ টায় সিটি কপোরেশনের ১১ নং ওয়ার্ডের তল্লা এলাকার হাশেম মিয়ার বাড়ি থেকে ১১ নং ওয়ার্ড ড্রেন সংস্কার কাজের চুরি হওয়া ৩ বান্ডেল রড উদ্ধার করে। রড উদ্ধারের সময় হাশেম মিয়ার বড় ছেলে জুয়েল (৪২) কে আটক করে ১১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সচিব রুবেল ও তল্লা হাজীগঞ্জএলাকাবাসি। পরে এলাকাবাসি গণধোলাই দিয়ে হাজীগঞ্জ কাচাবাজারে আটক করে রাখে। পরে স্হানীয় কাউন্সিলর জমসের আলী জন্টু ঘটনাস্হলে উপস্হিত হন। এছাড়াও আরো উপস্হিত হন নারায়নগঞ্জ আওয়ামীলীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা ডেপুটি কমান্ডার এডভোকেট নুরুল হুদা। তাদের সাথে এলাকার আরো গণ্যমান্য ব্যক্তি হাজীগঞ্জ ক্লাবে বসে শালিশীর মাধ্যমে আটককৃত জুয়েলের পিতা আবুল হাশেম মিয়া বন্ড সই দিয়ে ছাড়িয়ে নিয়ে যায়।
ঐ শালিশীর বিচারের সময় ১১ নং কাউন্সিলর জমসের আলী জন্টু বলেন তল্লা সুবারিবাগ এলাকার ড্রেনের রাস্তার জন্য সরঞ্জামাদি রাস্তার পাশে রাখা ছিল ইট,বালু,রড। বৃষ্টির কারনে কন্টাক্টর কাজ করতে পারছিল না। হঠাৎ করে আগামীকাল রাত ৮ ঘটিকায় মেয়র মহোদয় আমাকে ফোন দিয়ে জানতে চাইলেন আমার ওয়ার্ডের কাজের সাইডে মালামাল চুরি হয়ে যাচ্ছে। কন্টাক্টর নাকি তাহার নিকট নিলিশ করেছেন। তাই আমি ঐ সময় আমার সচিবকে এবং এই এলাকার কয়েকজন স্হানীয় ব্যক্তিবর্গকে বিষয়টি সম্পর্কে অবগত করি। আজ সকালে জানতে পারলাম এলাকাবাসি চুরি হওয়া রড হাশেম মিয়ার বাড়ি থেকে উদ্ধার করেছে।

ট্যাগস :

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

জনপ্রিয় সংবাদ

নাসিকের ১১নং ওয়ার্ডে চুরি হওয়া রড উদ্ধার, চোরকে গণধোলায়ে মুক্তি

আপডেট সময় : ০৭:১৫:৫৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১

নিজস্ব প্রতিনিধি; বহস্পতিবার (২৪ জুন) সকাল ১১ টায় সিটি কপোরেশনের ১১ নং ওয়ার্ডের তল্লা এলাকার হাশেম মিয়ার বাড়ি থেকে ১১ নং ওয়ার্ড ড্রেন সংস্কার কাজের চুরি হওয়া ৩ বান্ডেল রড উদ্ধার করে। রড উদ্ধারের সময় হাশেম মিয়ার বড় ছেলে জুয়েল (৪২) কে আটক করে ১১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সচিব রুবেল ও তল্লা হাজীগঞ্জএলাকাবাসি। পরে এলাকাবাসি গণধোলাই দিয়ে হাজীগঞ্জ কাচাবাজারে আটক করে রাখে। পরে স্হানীয় কাউন্সিলর জমসের আলী জন্টু ঘটনাস্হলে উপস্হিত হন। এছাড়াও আরো উপস্হিত হন নারায়নগঞ্জ আওয়ামীলীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা ডেপুটি কমান্ডার এডভোকেট নুরুল হুদা। তাদের সাথে এলাকার আরো গণ্যমান্য ব্যক্তি হাজীগঞ্জ ক্লাবে বসে শালিশীর মাধ্যমে আটককৃত জুয়েলের পিতা আবুল হাশেম মিয়া বন্ড সই দিয়ে ছাড়িয়ে নিয়ে যায়।
ঐ শালিশীর বিচারের সময় ১১ নং কাউন্সিলর জমসের আলী জন্টু বলেন তল্লা সুবারিবাগ এলাকার ড্রেনের রাস্তার জন্য সরঞ্জামাদি রাস্তার পাশে রাখা ছিল ইট,বালু,রড। বৃষ্টির কারনে কন্টাক্টর কাজ করতে পারছিল না। হঠাৎ করে আগামীকাল রাত ৮ ঘটিকায় মেয়র মহোদয় আমাকে ফোন দিয়ে জানতে চাইলেন আমার ওয়ার্ডের কাজের সাইডে মালামাল চুরি হয়ে যাচ্ছে। কন্টাক্টর নাকি তাহার নিকট নিলিশ করেছেন। তাই আমি ঐ সময় আমার সচিবকে এবং এই এলাকার কয়েকজন স্হানীয় ব্যক্তিবর্গকে বিষয়টি সম্পর্কে অবগত করি। আজ সকালে জানতে পারলাম এলাকাবাসি চুরি হওয়া রড হাশেম মিয়ার বাড়ি থেকে উদ্ধার করেছে।