নারায়ণগঞ্জ ১২:৩৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
নারায়ণগঞ্জে ৩টি উপজেলায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন যারা গুণী জনদের পদচারণায়  উদযাপিত  দৈনিক আজকের নীর বাংলা পত্রিকা’র ১৫ তম  বর্ষপূর্তি সিদ্ধিরগঞ্জে রাজউকের অভিযানে ক্ষুব্ধ ভবন মালিকরা রেকমত আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের মজিবুর রহমান সভাপতির দায়িত্ব নিয়েই শিক্ষার মান উন্নয়নের তাগিদ অস্ত্রের লাইসেন্সের আবেদন না করেও অপপ্রচারের শিকার মহিউদ্দিন মোল্লা ! সাংবাদিক শাওনের বাবা ফিরোজ আহমেদ আর নেই রিয়াদে জমকালো আয়োজনে মাই টিভির ১৫ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন রিয়াদে প্রিমিয়াম ফুটবল লীগের ফাইনাল অনুষ্ঠিত জুন মাসের ১৭ তারিখ কোরবানির ঈদ পালিত হওয়ার সম্ভবনা রিয়াদে নোভ আল আম্মার ইষ্টাবলিস্ট এর আয়োজনে দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

ফুটপাত নিয়ন্ত্রন নিতে ওসিকে বার্তা সাইট না দিলে নিউজ হয়ে যাবে

  • প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:৪৯:৫২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ এপ্রিল ২০২১
  • ২৭০ বার পড়া হয়েছে

সোনারগাঁ প্রতিনিধি : কাঁচপুর হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মনিরুজ্জামানের কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা ও ফুটপাতের চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রনের অনুমতি না পেয়ে অপপ্রচার শুরু করেছে একাধিকবার পিটুনি খাওয়া বিশেষ পেশার এক গুণধর। এ নিয়ে সাংবাদিক মহলে চলছে নানান সমালোচনা।
জানা গেছে, কাঁচপুর হাইওয়ে থানার ওসি মনিরুজ্জামানের ফেসবুকের ম্যাচেঞ্জারে বিশেষ পেশার এক গুণধর একাটি বার্তা পাঠায়। তাতে লিখা হয়। মসজিদ মার্কেট বরাবর ড্যাম্পিং গেইট থেকে আমাদের সোনাপুর শাখার রাস্তা পর্যন্ত আমাকে ফুটপাত দিয়ে দেন। এই এড়িয়া আমার নেতৃত্বে চলবে। আমি আপনাকে মাসিক ৩০ হাজার টাকা করে দিব। দয়াকরে বিষয়টি নজরে নিবেন। মনক্ষুন্ন হবেন না। আমাকে সাইট না দিলে নিউজ হয়ে যাবে। এমন হুশিয়ারী দেয়া হয় বার্তায়।
কিন্তু তার পরও ওসি তার প্রস্তাবে রাজি হয়নি। এর পর থেকেই ওসি মনিরুজ্জামানের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজিসহ নানা অভিযোগ উত্থাপন করে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হচ্ছে। রাস্তায় ফুটপাত দোকান বসিয়ে চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রন করার অনুমতি না দেওয়ার কারণেই ওসির বিরুদ্ধে ওই গুণধর মিথ্যা কাল্পনিক সংবাদ প্রকাশ করছে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন ওসি মনিরুজ্জামান।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বিশেষ পেশার ওই গুণধর চাঁদাবাজি ও নিরীহ মানুষকে ব্ল্যাকমেইলিং করতে গিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ, সোনারগাঁ ও রূপগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে একাধিকবার পিটুনি খেয়েছে। সে দেশের বিভিন্ন প্রথম শ্রেণির দৈনিক পত্রিকা ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়ায় কাজ করে এমন পরিচয় দিয়ে থাকে। এসব মিডিয়ার পরিচয় দিতে গিয়ে মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় বিভিন্ন জায়গায় নাজেহালও হয়েছেন এই গুণধর।
বিষয়টি জানার পর পেশাদার সাংবাদিকদের মধ্যে নানান সমালোচনা শুরু হয়েছে। ব্যক্তিস্বার্থে যারা সাংবাদিকতার মত মহান পেশাকে হেয় করছে তাদের বিরুদ্ধে সাংবাদিক সংগঠন ও প্রশাসনিক ভাবে প্রয়োজনীয় ব্যববস্থা গ্রহণ করা উচিৎ বলে মনে করছেন পেশাদার সাংবাদিকরা।

ট্যাগস :

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

নারায়ণগঞ্জে ৩টি উপজেলায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন যারা

ফুটপাত নিয়ন্ত্রন নিতে ওসিকে বার্তা সাইট না দিলে নিউজ হয়ে যাবে

আপডেট সময় : ০১:৪৯:৫২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ এপ্রিল ২০২১

সোনারগাঁ প্রতিনিধি : কাঁচপুর হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মনিরুজ্জামানের কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা ও ফুটপাতের চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রনের অনুমতি না পেয়ে অপপ্রচার শুরু করেছে একাধিকবার পিটুনি খাওয়া বিশেষ পেশার এক গুণধর। এ নিয়ে সাংবাদিক মহলে চলছে নানান সমালোচনা।
জানা গেছে, কাঁচপুর হাইওয়ে থানার ওসি মনিরুজ্জামানের ফেসবুকের ম্যাচেঞ্জারে বিশেষ পেশার এক গুণধর একাটি বার্তা পাঠায়। তাতে লিখা হয়। মসজিদ মার্কেট বরাবর ড্যাম্পিং গেইট থেকে আমাদের সোনাপুর শাখার রাস্তা পর্যন্ত আমাকে ফুটপাত দিয়ে দেন। এই এড়িয়া আমার নেতৃত্বে চলবে। আমি আপনাকে মাসিক ৩০ হাজার টাকা করে দিব। দয়াকরে বিষয়টি নজরে নিবেন। মনক্ষুন্ন হবেন না। আমাকে সাইট না দিলে নিউজ হয়ে যাবে। এমন হুশিয়ারী দেয়া হয় বার্তায়।
কিন্তু তার পরও ওসি তার প্রস্তাবে রাজি হয়নি। এর পর থেকেই ওসি মনিরুজ্জামানের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজিসহ নানা অভিযোগ উত্থাপন করে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হচ্ছে। রাস্তায় ফুটপাত দোকান বসিয়ে চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রন করার অনুমতি না দেওয়ার কারণেই ওসির বিরুদ্ধে ওই গুণধর মিথ্যা কাল্পনিক সংবাদ প্রকাশ করছে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন ওসি মনিরুজ্জামান।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বিশেষ পেশার ওই গুণধর চাঁদাবাজি ও নিরীহ মানুষকে ব্ল্যাকমেইলিং করতে গিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ, সোনারগাঁ ও রূপগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে একাধিকবার পিটুনি খেয়েছে। সে দেশের বিভিন্ন প্রথম শ্রেণির দৈনিক পত্রিকা ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়ায় কাজ করে এমন পরিচয় দিয়ে থাকে। এসব মিডিয়ার পরিচয় দিতে গিয়ে মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় বিভিন্ন জায়গায় নাজেহালও হয়েছেন এই গুণধর।
বিষয়টি জানার পর পেশাদার সাংবাদিকদের মধ্যে নানান সমালোচনা শুরু হয়েছে। ব্যক্তিস্বার্থে যারা সাংবাদিকতার মত মহান পেশাকে হেয় করছে তাদের বিরুদ্ধে সাংবাদিক সংগঠন ও প্রশাসনিক ভাবে প্রয়োজনীয় ব্যববস্থা গ্রহণ করা উচিৎ বলে মনে করছেন পেশাদার সাংবাদিকরা।