নারায়ণগঞ্জ ১২:৪৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সারা বাংলাদেশের মধ্যে উন্নয়নের মডেল উপজেলা রূপগঞ্জ : মন্ত্রী গোলাম  দস্তগীর গাজী

  • প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:৫৮:৪৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ মার্চ ২০২১
  • ১৭ বার পড়া হয়েছে

রূপগঞ্জ প্রতিনিধি :  নারায়ণগঞ্জ -১ ( রূপগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক রূপগঞ্জবাসীর উদ্দেশে বলেছেন, আমার চাওয়া পাওয়ার কিছু নেই। সবই পেয়েছি। নিজে ব্যবসা করে খাই। আপনারা ভোট দিয়ে আমাকে এমপি,মন্ত্রী বানিয়েছেন। আমার কাজ হচ্ছে জনগণ তথা আপনাদের হক আদায় করা। উন্নয়নের মাধ্যমে আপনাদের সেই হক আদায় করে যাচ্ছি। কোনো ক্ষেত্রে রূপগঞ্জের উন্নয়ন পিছিয়ে নেই। সারা বাংলাদেশের মধ্যে উন্নয়নের মডেল উপজেলা রূপগঞ্জ। আশেপাশের উপজেলার উন্নয়নের সাথে আমার উপজেলার উন্নয়নের তুলনা করে দেখুন আমরা কত এগিয়ে আছি। নিশ্চিত আপনারা আমাকে পাস নম্বর দেবেন।

তিনি বলেন, জনগণের দোয়ায় সেদিন আমি সিঙ্গাপুর থেকে সুস্থ হয়ে ফিরে এসেছি। আমার জন্য রূপগঞ্জবাসী মসজিদ, মন্দির, মাদ্রাসা, স্কুল-কলেজে দোয়া করেছে।

বৃহস্পতিবার ( ১১ মার্চ) বিকালে রূপগঞ্জ উপজেলার ১৩ নং হিরনাল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তিন তলা ভিত বিশিষ্ট একতলা একাডেমিক নতুন ভবন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমি পাকিস্তান আমল দেখেছি। বিরোধী দলের শাসন দেখেছি। তারা উন্নয়ন করেনি, করেছে লুটপাট ।

মন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ গণমানুষের দল। আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকলে দেশের মানুষের উন্নয়ন হয়। বঙ্গবন্ধু সারাজীবন বাঙালি জাতির উন্নয়নে কাজ করে গেছেন। তিনি আমাদের স্বাধীন দেশ দিয়েছেন। তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশেকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। প্রতিটি মানুষ সুখে থাকবে। সবার কর্মসংস্থান হচ্ছে।

গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক দাউদপুরবাসীর উদ্দেশে বলেন, ২০০৮ সালে নির্বাচনী প্রচারণায় হিরনাল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আমি প্রথম এসেছিলাম। এখানকার হেডমাস্টারের সঙ্গে দেখা হলো। আমাকে একটি মাটির ঘরে নিয়ে গেলো । মাটির ঘরে অন্ধকার। আগুনের মতো গরম। শুধু একটা টিনের ঘর দেখালো। সেই টিনের ঘরে ছাত্রছাত্রীদের দেখে আমার খুব খারাপ লাগলো। তখন আমি ভাবলাম আমাদের একটা কিছু করতে হবে । আমাদের ছেলে মেয়েরা টিনের ঘরে লেখাপড়া করবে না। আমরা বিল্ডিংয়ের ব্যবস্থা করেছি। এখানে গাড়ি নিয়ে আসা যেতো না। রাস্তা এবং বিদ্যুৎ ছিলো না।

ট্যাগস :

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

সারা বাংলাদেশের মধ্যে উন্নয়নের মডেল উপজেলা রূপগঞ্জ : মন্ত্রী গোলাম  দস্তগীর গাজী

আপডেট সময় : ১১:৫৮:৪৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ মার্চ ২০২১

রূপগঞ্জ প্রতিনিধি :  নারায়ণগঞ্জ -১ ( রূপগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক রূপগঞ্জবাসীর উদ্দেশে বলেছেন, আমার চাওয়া পাওয়ার কিছু নেই। সবই পেয়েছি। নিজে ব্যবসা করে খাই। আপনারা ভোট দিয়ে আমাকে এমপি,মন্ত্রী বানিয়েছেন। আমার কাজ হচ্ছে জনগণ তথা আপনাদের হক আদায় করা। উন্নয়নের মাধ্যমে আপনাদের সেই হক আদায় করে যাচ্ছি। কোনো ক্ষেত্রে রূপগঞ্জের উন্নয়ন পিছিয়ে নেই। সারা বাংলাদেশের মধ্যে উন্নয়নের মডেল উপজেলা রূপগঞ্জ। আশেপাশের উপজেলার উন্নয়নের সাথে আমার উপজেলার উন্নয়নের তুলনা করে দেখুন আমরা কত এগিয়ে আছি। নিশ্চিত আপনারা আমাকে পাস নম্বর দেবেন।

তিনি বলেন, জনগণের দোয়ায় সেদিন আমি সিঙ্গাপুর থেকে সুস্থ হয়ে ফিরে এসেছি। আমার জন্য রূপগঞ্জবাসী মসজিদ, মন্দির, মাদ্রাসা, স্কুল-কলেজে দোয়া করেছে।

বৃহস্পতিবার ( ১১ মার্চ) বিকালে রূপগঞ্জ উপজেলার ১৩ নং হিরনাল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তিন তলা ভিত বিশিষ্ট একতলা একাডেমিক নতুন ভবন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমি পাকিস্তান আমল দেখেছি। বিরোধী দলের শাসন দেখেছি। তারা উন্নয়ন করেনি, করেছে লুটপাট ।

মন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ গণমানুষের দল। আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকলে দেশের মানুষের উন্নয়ন হয়। বঙ্গবন্ধু সারাজীবন বাঙালি জাতির উন্নয়নে কাজ করে গেছেন। তিনি আমাদের স্বাধীন দেশ দিয়েছেন। তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশেকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। প্রতিটি মানুষ সুখে থাকবে। সবার কর্মসংস্থান হচ্ছে।

গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক দাউদপুরবাসীর উদ্দেশে বলেন, ২০০৮ সালে নির্বাচনী প্রচারণায় হিরনাল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আমি প্রথম এসেছিলাম। এখানকার হেডমাস্টারের সঙ্গে দেখা হলো। আমাকে একটি মাটির ঘরে নিয়ে গেলো । মাটির ঘরে অন্ধকার। আগুনের মতো গরম। শুধু একটা টিনের ঘর দেখালো। সেই টিনের ঘরে ছাত্রছাত্রীদের দেখে আমার খুব খারাপ লাগলো। তখন আমি ভাবলাম আমাদের একটা কিছু করতে হবে । আমাদের ছেলে মেয়েরা টিনের ঘরে লেখাপড়া করবে না। আমরা বিল্ডিংয়ের ব্যবস্থা করেছি। এখানে গাড়ি নিয়ে আসা যেতো না। রাস্তা এবং বিদ্যুৎ ছিলো না।