নারায়ণগঞ্জ ০৫:২৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সিদ্ধিরগঞ্জে বিএনপি জামায়াতের ফাঁদে আওয়ামীলীগ

  • প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:১১:২১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯
  • ৫৩ বার পড়া হয়েছে

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি : সিদ্ধিরগঞ্জে আওয়ামীলীগের কাঁধে সওয়ার হয়েছে বিএনপি জামায়াত। বিএনপি জামায়াতের সুপরিকল্পিত ষড়যন্ত্রের ফাঁদে পা দিয়ে সাংগঠনিক ভাবে দুর্বল হয়ে পড়ছে ক্ষমতাসিন দলটি। আওয়ামীলীগে যোগদান করে জয়বাংলা স্লোগান দিয়ে এলাকায় আধিপত্য বিস্তার করে তলে তলে জিন্দাবাদ কায়েম করার সক্রিয় ভূমিকা পালন করছে অনুপ্রবেশকারীরা।
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, আওয়ামীলীগকে দুর্বল করতে নিজের নাক কেটে পড়ের যাত্রা ভঙ্গ করার মিশনে নেমেছে বিএনপি জামায়াত। পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে তারা বিএনপি জামায়াত ছেড়ে আওয়ামীলীগে যোগ দিয়ে দাপটের সাথে চাঁদাবাজিসহ নানা অপকর্ম করছে। যার দায় পড়ছে আওয়ামীলীগের উপর। এসব অনুপ্রবেশকারী নব্য আওয়ামীলীগারদের দাপটে কোণঠাসা হয়ে পড়ছে প্রকৃত ত্যাগী আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা। দলীয় কর্মসূচিতে অনুপ্রবেশকারীদের তৎপরতায় মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন ত্যাগীরা। যা দলের জন্য শুভ নয়। স্থানীয় কয়েকজন ক্ষমতাধর শীর্ষ নেতা নিজ স্বার্থে বিএনপি জামায়াত নেতাকর্মীদের দলে ঠাঁই দিয়ে সর্বনাশ ডেকে এনেছে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তৃণমূল নেতাকর্মীরা। তারা বলেন, ঘরের শত্রু বিভিষন হয়ে কাজ করছে এসব অনুপ্রবেশকারীরা।
জানা গেছে, সাংগঠনিক ভাবে মেরুদন্ডহীন হয়ে পড়া সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বিএনপি ও জামায়াত নেতারা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর কৌশল পাল্টায়। এলাকায় ঠিকে থাকতে বিএনপি জামায়াত ছেড়ে অসংখ্য নেতাকর্মী আওয়ামীলীগে যোগদেয়। যোগদান কারীদের মধ্যে নাশকতাসহ একাধিক মামলার আসামি ও সন্ত্রাসী চাঁদাবাজের সংখ্যাই বেশি। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহলদের মতে তাদের এই যোগদান নাকট সফল হয়েছে। জয়বাংলা স্লোগান দিয়ে তারা সাত খুন মাফ পেয়েছে। মামলার আসামি হলেও পুলিশ তাদের হয়রানী করছেনা। অনেক বিএনপি নেতা আওয়ামীলীগে যোগ না দিলেও স্থানীয় সংবাদ পত্রে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে দল ত্যাগ করে। সূত্র জানায়, আওয়ামীলীগে যোগদান আর দল ত্যাগের ঘোষনা তাদের সাজানো নাটক। তারা আওয়ামীলীগ সেজে অবৈধ আয়ের সেক্টর নিয়ন্ত্রন, পরিবহন চাঁদাবাজিসহ নানা অপকর্ম করে দলের বদনাম করছে। প্রত্যক্ষ ভাবে তারা আওয়ামীলীগ হলেও পরোক্ষ ভাবে বিএনপি জামায়াতের আকিদা পালন করছে।
এ বিষয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব মজিবুর রহমানের সাথে কথা হলে তিনি জানান, বিএনপি জামায়াতের কোন লোককে আমি আশ্রয় দেইনা। আমাদের কিছু নেতা আছে তারা বিএনপি জামায়াতের লোকদের ছাড়া চলতে পারেনা। তাদের আশ্রয়ে যারা আওয়ামীলীগের কর্মসূচিতে অংশ নিচ্ছে তাদের কর্মকান্ডের প্রতি আমাদের নজরধারী রয়েছে। তারা নিজেদের আওয়ামীলীগের লোক দাবি করলেও খাতা কলমে নাই।
সাধারণ সম্পাদক হাজী ইয়াছিন মিয়া বলেন, স্বার্থের জন্যই তারা আওয়ামীলীগে এসেছে। এদের দ্বারা দলের কোন উপকার হচ্ছে না। বরং তারা দলের ক্ষতি করছে।

ট্যাগস :

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

জনপ্রিয় সংবাদ

সিদ্ধিরগঞ্জে বিএনপি জামায়াতের ফাঁদে আওয়ামীলীগ

আপডেট সময় : ০৭:১১:২১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি : সিদ্ধিরগঞ্জে আওয়ামীলীগের কাঁধে সওয়ার হয়েছে বিএনপি জামায়াত। বিএনপি জামায়াতের সুপরিকল্পিত ষড়যন্ত্রের ফাঁদে পা দিয়ে সাংগঠনিক ভাবে দুর্বল হয়ে পড়ছে ক্ষমতাসিন দলটি। আওয়ামীলীগে যোগদান করে জয়বাংলা স্লোগান দিয়ে এলাকায় আধিপত্য বিস্তার করে তলে তলে জিন্দাবাদ কায়েম করার সক্রিয় ভূমিকা পালন করছে অনুপ্রবেশকারীরা।
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, আওয়ামীলীগকে দুর্বল করতে নিজের নাক কেটে পড়ের যাত্রা ভঙ্গ করার মিশনে নেমেছে বিএনপি জামায়াত। পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে তারা বিএনপি জামায়াত ছেড়ে আওয়ামীলীগে যোগ দিয়ে দাপটের সাথে চাঁদাবাজিসহ নানা অপকর্ম করছে। যার দায় পড়ছে আওয়ামীলীগের উপর। এসব অনুপ্রবেশকারী নব্য আওয়ামীলীগারদের দাপটে কোণঠাসা হয়ে পড়ছে প্রকৃত ত্যাগী আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা। দলীয় কর্মসূচিতে অনুপ্রবেশকারীদের তৎপরতায় মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন ত্যাগীরা। যা দলের জন্য শুভ নয়। স্থানীয় কয়েকজন ক্ষমতাধর শীর্ষ নেতা নিজ স্বার্থে বিএনপি জামায়াত নেতাকর্মীদের দলে ঠাঁই দিয়ে সর্বনাশ ডেকে এনেছে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তৃণমূল নেতাকর্মীরা। তারা বলেন, ঘরের শত্রু বিভিষন হয়ে কাজ করছে এসব অনুপ্রবেশকারীরা।
জানা গেছে, সাংগঠনিক ভাবে মেরুদন্ডহীন হয়ে পড়া সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বিএনপি ও জামায়াত নেতারা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর কৌশল পাল্টায়। এলাকায় ঠিকে থাকতে বিএনপি জামায়াত ছেড়ে অসংখ্য নেতাকর্মী আওয়ামীলীগে যোগদেয়। যোগদান কারীদের মধ্যে নাশকতাসহ একাধিক মামলার আসামি ও সন্ত্রাসী চাঁদাবাজের সংখ্যাই বেশি। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহলদের মতে তাদের এই যোগদান নাকট সফল হয়েছে। জয়বাংলা স্লোগান দিয়ে তারা সাত খুন মাফ পেয়েছে। মামলার আসামি হলেও পুলিশ তাদের হয়রানী করছেনা। অনেক বিএনপি নেতা আওয়ামীলীগে যোগ না দিলেও স্থানীয় সংবাদ পত্রে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে দল ত্যাগ করে। সূত্র জানায়, আওয়ামীলীগে যোগদান আর দল ত্যাগের ঘোষনা তাদের সাজানো নাটক। তারা আওয়ামীলীগ সেজে অবৈধ আয়ের সেক্টর নিয়ন্ত্রন, পরিবহন চাঁদাবাজিসহ নানা অপকর্ম করে দলের বদনাম করছে। প্রত্যক্ষ ভাবে তারা আওয়ামীলীগ হলেও পরোক্ষ ভাবে বিএনপি জামায়াতের আকিদা পালন করছে।
এ বিষয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব মজিবুর রহমানের সাথে কথা হলে তিনি জানান, বিএনপি জামায়াতের কোন লোককে আমি আশ্রয় দেইনা। আমাদের কিছু নেতা আছে তারা বিএনপি জামায়াতের লোকদের ছাড়া চলতে পারেনা। তাদের আশ্রয়ে যারা আওয়ামীলীগের কর্মসূচিতে অংশ নিচ্ছে তাদের কর্মকান্ডের প্রতি আমাদের নজরধারী রয়েছে। তারা নিজেদের আওয়ামীলীগের লোক দাবি করলেও খাতা কলমে নাই।
সাধারণ সম্পাদক হাজী ইয়াছিন মিয়া বলেন, স্বার্থের জন্যই তারা আওয়ামীলীগে এসেছে। এদের দ্বারা দলের কোন উপকার হচ্ছে না। বরং তারা দলের ক্ষতি করছে।