নারায়ণগঞ্জ ০১:০৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মন্ত্রীর কাছে পরাজিত হলেন পুলিশ সুপার

  • প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:১৩:৪৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯
  • ১০৯ বার পড়া হয়েছে

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি: টানা জয়ের পর প্রথমবারে মতো পরাজিত হলেন জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদের ফুটবল একাদশ দল। বুধবার (৪ সেপ্টেম্বর) বিকেলে নারায়ণগঞ্জ রূপগঞ্জের মুড়াপাড়া স্টেডিয়ামে পাট ও বস্ত্র মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী একাদশের কাছে ২-১ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয় এসপি হারুন একাদশ। এর আগে নারায়ণগঞ্জের ডিসি, সাংবাদিক, সানারগাঁও ও আড়াইহাজারের এমপি একাদশকে পরাজিত করে এসপি হারুন একাদশ।
মন্ত্রী বনাম এসপি একাদশের খেলা দেখতে স্টেডিয়ামে হাজারো দর্শকের সমাগম হয়। মাঠের চারপাশের ভবনের ছাদ এমনকি গাছে উঠেও মানুষ খেলা উপভোগ করেন।
টুনার্মেন্টের উদ্বোধনকালে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী (বীর প্রতীক) বলেছেন, বতর্মান সরকার মাদক ও জঙ্গিবাদ নির্মূলে কাজ করছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চান দেশে মাদক ও জঙ্গিবাদ বলে কিছু থাকবে না। বতর্মান সরকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের নিয়ে সেই কাজটি করে যাচ্ছে। আমরা মাদক নিয়ন্ত্রণ করেছি তবে পরিপূর্ণভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে পারিনি। সেজন্য সকলকে এক হয়ে কাজ করতে হবে। যুব সমাজ রায় সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে লড়তে হবে। প্রশাসনের সঙ্গে জনগণের মিলনমেলা তৈরি হয়েছে। সেজন্য আমাদের নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মাদকের বিরুদ্ধে লড়তে ফুটবল খেলা চালু করেছেন। এতে করে জনগণের সঙ্গে প্রশাসনের বন্ধুত্ব তৈরি হচ্ছে।
পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ বলেন, জঙ্গিবাদের কারণে দেশের শান্তি নষ্ট হচ্ছে। মাদকের বিরুদ্ধে এক হয়ে কাজ করতে হবে। যুব সমাজ আগামী দিনের অহংকার। তারা সমাজ থেকে বিচ্যুত হলে দেশের উন্নয়ন নষ্ট হবে। খেলাধুলায় উৎসাহ দিয়ে তাই যুব সমাজকে রা করতে হবে। পুলিশ সব সময় দেশের মানুষের পাশে আছে এবং থাকবে।
খেলা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) আবদুল্লাহ আল মামুন, রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মমতাজ বেগম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) তরিকুল ইসলাম, তারাব পৌরসভার মেয়র হাসিনা গাজী, রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহমুদুল হাসান, সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান মনির, রূপগঞ্জ প্রেসকাবের সভাপতি লায়ন মীর আব্দুল আলীম, জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার কর্মকর্তা (ডিআইও-২) সাজ্জাদ রোমন প্রমুখ।

ট্যাগস :

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

মন্ত্রীর কাছে পরাজিত হলেন পুলিশ সুপার

আপডেট সময় : ১২:১৩:৪৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি: টানা জয়ের পর প্রথমবারে মতো পরাজিত হলেন জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদের ফুটবল একাদশ দল। বুধবার (৪ সেপ্টেম্বর) বিকেলে নারায়ণগঞ্জ রূপগঞ্জের মুড়াপাড়া স্টেডিয়ামে পাট ও বস্ত্র মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী একাদশের কাছে ২-১ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয় এসপি হারুন একাদশ। এর আগে নারায়ণগঞ্জের ডিসি, সাংবাদিক, সানারগাঁও ও আড়াইহাজারের এমপি একাদশকে পরাজিত করে এসপি হারুন একাদশ।
মন্ত্রী বনাম এসপি একাদশের খেলা দেখতে স্টেডিয়ামে হাজারো দর্শকের সমাগম হয়। মাঠের চারপাশের ভবনের ছাদ এমনকি গাছে উঠেও মানুষ খেলা উপভোগ করেন।
টুনার্মেন্টের উদ্বোধনকালে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী (বীর প্রতীক) বলেছেন, বতর্মান সরকার মাদক ও জঙ্গিবাদ নির্মূলে কাজ করছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চান দেশে মাদক ও জঙ্গিবাদ বলে কিছু থাকবে না। বতর্মান সরকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের নিয়ে সেই কাজটি করে যাচ্ছে। আমরা মাদক নিয়ন্ত্রণ করেছি তবে পরিপূর্ণভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে পারিনি। সেজন্য সকলকে এক হয়ে কাজ করতে হবে। যুব সমাজ রায় সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে লড়তে হবে। প্রশাসনের সঙ্গে জনগণের মিলনমেলা তৈরি হয়েছে। সেজন্য আমাদের নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মাদকের বিরুদ্ধে লড়তে ফুটবল খেলা চালু করেছেন। এতে করে জনগণের সঙ্গে প্রশাসনের বন্ধুত্ব তৈরি হচ্ছে।
পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ বলেন, জঙ্গিবাদের কারণে দেশের শান্তি নষ্ট হচ্ছে। মাদকের বিরুদ্ধে এক হয়ে কাজ করতে হবে। যুব সমাজ আগামী দিনের অহংকার। তারা সমাজ থেকে বিচ্যুত হলে দেশের উন্নয়ন নষ্ট হবে। খেলাধুলায় উৎসাহ দিয়ে তাই যুব সমাজকে রা করতে হবে। পুলিশ সব সময় দেশের মানুষের পাশে আছে এবং থাকবে।
খেলা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) আবদুল্লাহ আল মামুন, রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মমতাজ বেগম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) তরিকুল ইসলাম, তারাব পৌরসভার মেয়র হাসিনা গাজী, রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহমুদুল হাসান, সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান মনির, রূপগঞ্জ প্রেসকাবের সভাপতি লায়ন মীর আব্দুল আলীম, জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার কর্মকর্তা (ডিআইও-২) সাজ্জাদ রোমন প্রমুখ।