নারায়ণগঞ্জ ১২:১৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
সোনারগাঁওয়ে কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত সিদ্ধিরগঞ্জে ৪টি কারখানার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন হারামের পয়সা ব্যারামে খায় ,আমি হারাম খাই না খেতেও দেই না-সেলিম ওসমান ভূমি সম্পর্কিত সমস্যা থাকলে গণশুনানিতে আসার আহবান- না.গঞ্জে জেলা  প্রশাসক সিদ্ধিরগঞ্জে গ্যাসের দাবিতে ঢাকা-চটগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ সোনারগাঁওয়ে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০২৪ অনুষ্ঠিত র‌্যাব পরিচয়ে ৫২ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় গ্রেফতার-৪ সিদ্ধিরগঞ্জে কাতার প্রবাসীর বাড়িতে ডাকাতি চিকিৎসার নামে কোনো প্রকার হয়রানি মেনে নেওয়া হবে না ঃ স্বাস্থ্যমন্ত্রী নাসিকের ময়লার গাড়ির ধাক্কায় গর্ভবতীর পোশাক শ্রমিক নিহত

নারায়ণগেঞ্জ ইটভাটায় পরিবেশ দূষণ : উদাসীন সংশ্লিষ্টরা

  • প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৩:৩১:১২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ এপ্রিল ২০১৯
  • ২১১ বার পড়া হয়েছে

 

স্টাফ রিপোর্টার : নারায়ণঞ্জে পরিবেশ দূষণকারী ইটভাটার বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে অর্থ জরিমানা করা হলেও কোন লাভ হচ্ছে না। ম্যানেজ পক্রিয়ায় যথারিতি চলছে জেলার বিভিন্ন থানায় গড়ে উঠা কয়েকশ ইটভাটা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তালিকায় বাংলাদেশের সবচেয়ে দূষিত বায়ুর শহর নারায়ণগঞ্জ জেলার নাম আসলেও পরিবেশ দূষণ নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ উদাসিন।
জানা গেছে, চলতি মাসের গত ৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় ১২টি ইটভাটাকে সাড়ে ৪১ লাখ টাকা জরিমানা করেছে পরিবেশ অধিদফতরের ভ্রাম্যমাণ আদালত। তার আগে গত ১২ মার্চ ২৫ টি ইটভাটাকে ১ কোটি ২৫ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। নিয়ম না মেনে ইটভাটা পরিচালনা করায় জরিমানার পাশাপাশি একটি ইটভাটার ইট ভেকু দিয়ে ভেঙে গুঁড়িয়ে দেয়া হয়।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জ জেলার ৭ টি থানার মধ্যে সবচেয়ে বেশি ইটভাটা ফতুল্লা ও রূপগঞ্জে। এসব ইটভাটার কালো ধোঁয়ায় পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। যথাযথ ভাবে ইটভাটার সিমিনি নির্মাণ না করায় ধোঁয়া বেশি উপরে যাচ্ছে না। এতে প্রভাব পড়ছে পরিবেশের উপর। ফতুল্লার পাগলা, ধর্মগঞ্জ, বক্তাবলী ও আলীরটেক এলাকায় কমপক্ষে শতাধিক ইটভাটা রয়েছে। প্রভাবশালী ব্যক্তিরাই এসব ইটভাটার মলিক। এসব ইট ভাটায় সরাসরি কাঠ ও কয়লা পোড়ানো হয়। যার ফলে ইটভাটার বিষাক্ত কালো ধোঁয়া এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। এতে পশুপাখি গাছপালাসহ মানবদেহের মারাত্মক ক্ষতি করছে। রূপগঞ্জ উপজেলাতেও রয়েছে শতাধিক ইটভাটা। যা সরকারি নিয়ম মোতাবেক গড়ে উঠেনি।
নারায়ণগঞ্জ পরিবেশ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, জেলায় সাড়ে তিনশ’ ইটভাটা রয়েছে। যার মধ্যে মাত্র ৩০ থেকে ৩৫টি ইটভাটা চলছে নিয়ম মেনে। বাকী ১২৮টি ইটভাটা আদালতে রিট করে পরিচালনা করছে। এছাড়া বাকি সব ইটভাটাই অবৈধভাবে চলছে। পরিবেশ দূষণের মূলে এসব ইটভাটাকে দায়ি করছেন সংশ্লিষ্টরা। কারণ, ইটভাটার চিমিনি নিয়ম না মেনে তৈরি করায় পরিবেশ দূষণ মাত্রাতিরিক্ত আকার ধারণ করেছে। যার কারণে বাতাসে কার্বন ডাই অক্সাইড, কাবর্ন-মনোঅক্সাইড, সালফার ডাইঅক্সাইড, এসপিএমসহ মিশে মানবদেহের মারাত্মক ক্ষতি করছে। ফলে ইটভাটাগুলোর আশপাশের সাধারণ মানুষ কিডনি ও শ্বাসকষ্টসহ নানা ধরনের জটিল রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।
অভিযোগ জানা গেছে, পরিবেশ অধিদপ্তরের অসাধু কর্মকর্তা, স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন, রাজনৈতিক নেতাদের ম্যানেজ করে চলছে ইটভাটা। ম্যানেজ পক্রিয়ার কারণে ইটভাটা মালিকরা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। সরকারি কোন নিয়মনীতি মানছেনা।

ট্যাগস :

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

সোনারগাঁওয়ে কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত

নারায়ণগেঞ্জ ইটভাটায় পরিবেশ দূষণ : উদাসীন সংশ্লিষ্টরা

আপডেট সময় : ০৩:৩১:১২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ এপ্রিল ২০১৯

 

স্টাফ রিপোর্টার : নারায়ণঞ্জে পরিবেশ দূষণকারী ইটভাটার বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে অর্থ জরিমানা করা হলেও কোন লাভ হচ্ছে না। ম্যানেজ পক্রিয়ায় যথারিতি চলছে জেলার বিভিন্ন থানায় গড়ে উঠা কয়েকশ ইটভাটা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তালিকায় বাংলাদেশের সবচেয়ে দূষিত বায়ুর শহর নারায়ণগঞ্জ জেলার নাম আসলেও পরিবেশ দূষণ নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ উদাসিন।
জানা গেছে, চলতি মাসের গত ৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় ১২টি ইটভাটাকে সাড়ে ৪১ লাখ টাকা জরিমানা করেছে পরিবেশ অধিদফতরের ভ্রাম্যমাণ আদালত। তার আগে গত ১২ মার্চ ২৫ টি ইটভাটাকে ১ কোটি ২৫ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। নিয়ম না মেনে ইটভাটা পরিচালনা করায় জরিমানার পাশাপাশি একটি ইটভাটার ইট ভেকু দিয়ে ভেঙে গুঁড়িয়ে দেয়া হয়।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জ জেলার ৭ টি থানার মধ্যে সবচেয়ে বেশি ইটভাটা ফতুল্লা ও রূপগঞ্জে। এসব ইটভাটার কালো ধোঁয়ায় পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। যথাযথ ভাবে ইটভাটার সিমিনি নির্মাণ না করায় ধোঁয়া বেশি উপরে যাচ্ছে না। এতে প্রভাব পড়ছে পরিবেশের উপর। ফতুল্লার পাগলা, ধর্মগঞ্জ, বক্তাবলী ও আলীরটেক এলাকায় কমপক্ষে শতাধিক ইটভাটা রয়েছে। প্রভাবশালী ব্যক্তিরাই এসব ইটভাটার মলিক। এসব ইট ভাটায় সরাসরি কাঠ ও কয়লা পোড়ানো হয়। যার ফলে ইটভাটার বিষাক্ত কালো ধোঁয়া এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। এতে পশুপাখি গাছপালাসহ মানবদেহের মারাত্মক ক্ষতি করছে। রূপগঞ্জ উপজেলাতেও রয়েছে শতাধিক ইটভাটা। যা সরকারি নিয়ম মোতাবেক গড়ে উঠেনি।
নারায়ণগঞ্জ পরিবেশ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, জেলায় সাড়ে তিনশ’ ইটভাটা রয়েছে। যার মধ্যে মাত্র ৩০ থেকে ৩৫টি ইটভাটা চলছে নিয়ম মেনে। বাকী ১২৮টি ইটভাটা আদালতে রিট করে পরিচালনা করছে। এছাড়া বাকি সব ইটভাটাই অবৈধভাবে চলছে। পরিবেশ দূষণের মূলে এসব ইটভাটাকে দায়ি করছেন সংশ্লিষ্টরা। কারণ, ইটভাটার চিমিনি নিয়ম না মেনে তৈরি করায় পরিবেশ দূষণ মাত্রাতিরিক্ত আকার ধারণ করেছে। যার কারণে বাতাসে কার্বন ডাই অক্সাইড, কাবর্ন-মনোঅক্সাইড, সালফার ডাইঅক্সাইড, এসপিএমসহ মিশে মানবদেহের মারাত্মক ক্ষতি করছে। ফলে ইটভাটাগুলোর আশপাশের সাধারণ মানুষ কিডনি ও শ্বাসকষ্টসহ নানা ধরনের জটিল রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।
অভিযোগ জানা গেছে, পরিবেশ অধিদপ্তরের অসাধু কর্মকর্তা, স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন, রাজনৈতিক নেতাদের ম্যানেজ করে চলছে ইটভাটা। ম্যানেজ পক্রিয়ার কারণে ইটভাটা মালিকরা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। সরকারি কোন নিয়মনীতি মানছেনা।