নারায়ণগঞ্জ ১১:৩৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
নাসিকের ময়লার গাড়ির ধাক্কায় গর্ভবতীর পোশাক শ্রমিক নিহত সোনারগাঁয়ের ১টি হত্যা মামলার প্রধান আসামিসহ দুজনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১১ নারায়ণগঞ্জে ৩টি উপজেলায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন যারা গুণী জনদের পদচারণায়  উদযাপিত  দৈনিক আজকের নীর বাংলা পত্রিকা’র ১৫ তম  বর্ষপূর্তি সিদ্ধিরগঞ্জে রাজউকের অভিযানে ক্ষুব্ধ ভবন মালিকরা রেকমত আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের মজিবুর রহমান সভাপতির দায়িত্ব নিয়েই শিক্ষার মান উন্নয়নের তাগিদ অস্ত্রের লাইসেন্সের আবেদন না করেও অপপ্রচারের শিকার মহিউদ্দিন মোল্লা ! সাংবাদিক শাওনের বাবা ফিরোজ আহমেদ আর নেই রিয়াদে জমকালো আয়োজনে মাই টিভির ১৫ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন রিয়াদে প্রিমিয়াম ফুটবল লীগের ফাইনাল অনুষ্ঠিত

কদমতলীতে সরল ডাকাত বেপরোয়া

  • প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০২:৩৯:৪০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৮ জুলাই ২০২০
  • ১৪৬ বার পড়া হয়েছে

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি : সিদ্ধিরগঞ্জের দক্ষিণ কদমতলী নয়াপাড়া এলাকায় শহিদুল ইসলাম সরল ওরফে সরল ডাকাতের মাদক ব্যবসা ফের চাঙ্গা হয়ে উঠেছে। ডাকাতি, মাদ ও পুলিশের অস্ত্র ছিনতাইসহ একাধিক মামলার আসামি যুবদল কর্মী দুধর্ষ সন্ত্রাসী সরল ও তার বাহিনী বেপরোয়া হয়ে উঠায় এলাকায় বিরাজ করছে আতঙ্ক। হাতের নাগালে মাদক পেয়ে যুবসমাজ ও স্কুল কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন শ্রেণির মানুষ ধ্বংসের দিকে ধাবিত হচ্ছে। রহস্যজনক কারণে স্থানীয় প্রশাসন এ চক্রের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহন করছেন না বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন স্থানীয়রা।

স্থানীয়রা জানায়, নাসিক ৭ নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ কদমতলী নয়াপাড়া এলাকার মৃত ফজল হকের ছেলে সরল। এলাকায় সে সরল ডাকাত হিসেবে পরিচিত। এক সময়ের শীর্ষ সন্ত্রাসী মৃত গলাকাটা কাশেমের ভাগিনা এই সরলের বিরুদ্ধে ডাকাতি, মাদক, মারামারি, পুলিশের অস্ত্র ছিনতাইসহ একাধিক মামলা রয়েছে। সে মাদক ও অস্ত্রসহ একাধিকবার পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয়ে কিছুদিন জেল হাজত বাস করে জামিনে বের হয়ে এলাকায় সন্ত্রাসী কর্মকান্ড, মাদক ব্যবসাসহ নানা অপকর্ম করে। সে একই এলাকার সোহান ও দুলালসহ ১৫/২০ জনের একটি সঙ্গবদ্ধ বাহিনী গড়ে তুলে। এই বাহিনী দীর্ষদিন ধরেই এলাকায় বীরদর্পে মাদক ব্যবসাসহ নানা আপরাধ মূলক কার্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে। গত ১ বছর ধরে সরল ডাকাত আত্নগোপনে ছিল। সম্প্রতি সে এলাকায় ফিরে এসে আবার মাদক ব্যবসা চাঙ্গা করে তুলেছে। তার মাদক ব্যবসার সেল্সম্যান হিসেবে কাজ করছে সোহান ও দুলাল। এলাকার কেহ প্রতিবাদ করলে নানা ভাবে অত্যাচার নির্যাতন ও হুমকি ধমকি দেয় সরল বাহিনী। ফলে সন্ত্রাসী সরলের ভয়ে কেহ প্রতিবাদ করার সাহস পায়না। তাই সরল ও তার বাহিনীর বিরুদ্ধে জেলা পুলিশ সুপার ও র‌্যাবের হস্তক্ষেপ কামনা করেন এলাকার সচেতন মহল।
এ বিষয়ে সরলের সাথে যোগযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তা সম্ভব হয়নি।

ট্যাগস :

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

নাসিকের ময়লার গাড়ির ধাক্কায় গর্ভবতীর পোশাক শ্রমিক নিহত

কদমতলীতে সরল ডাকাত বেপরোয়া

আপডেট সময় : ০২:৩৯:৪০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৮ জুলাই ২০২০

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি : সিদ্ধিরগঞ্জের দক্ষিণ কদমতলী নয়াপাড়া এলাকায় শহিদুল ইসলাম সরল ওরফে সরল ডাকাতের মাদক ব্যবসা ফের চাঙ্গা হয়ে উঠেছে। ডাকাতি, মাদ ও পুলিশের অস্ত্র ছিনতাইসহ একাধিক মামলার আসামি যুবদল কর্মী দুধর্ষ সন্ত্রাসী সরল ও তার বাহিনী বেপরোয়া হয়ে উঠায় এলাকায় বিরাজ করছে আতঙ্ক। হাতের নাগালে মাদক পেয়ে যুবসমাজ ও স্কুল কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন শ্রেণির মানুষ ধ্বংসের দিকে ধাবিত হচ্ছে। রহস্যজনক কারণে স্থানীয় প্রশাসন এ চক্রের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহন করছেন না বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন স্থানীয়রা।

স্থানীয়রা জানায়, নাসিক ৭ নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ কদমতলী নয়াপাড়া এলাকার মৃত ফজল হকের ছেলে সরল। এলাকায় সে সরল ডাকাত হিসেবে পরিচিত। এক সময়ের শীর্ষ সন্ত্রাসী মৃত গলাকাটা কাশেমের ভাগিনা এই সরলের বিরুদ্ধে ডাকাতি, মাদক, মারামারি, পুলিশের অস্ত্র ছিনতাইসহ একাধিক মামলা রয়েছে। সে মাদক ও অস্ত্রসহ একাধিকবার পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয়ে কিছুদিন জেল হাজত বাস করে জামিনে বের হয়ে এলাকায় সন্ত্রাসী কর্মকান্ড, মাদক ব্যবসাসহ নানা অপকর্ম করে। সে একই এলাকার সোহান ও দুলালসহ ১৫/২০ জনের একটি সঙ্গবদ্ধ বাহিনী গড়ে তুলে। এই বাহিনী দীর্ষদিন ধরেই এলাকায় বীরদর্পে মাদক ব্যবসাসহ নানা আপরাধ মূলক কার্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে। গত ১ বছর ধরে সরল ডাকাত আত্নগোপনে ছিল। সম্প্রতি সে এলাকায় ফিরে এসে আবার মাদক ব্যবসা চাঙ্গা করে তুলেছে। তার মাদক ব্যবসার সেল্সম্যান হিসেবে কাজ করছে সোহান ও দুলাল। এলাকার কেহ প্রতিবাদ করলে নানা ভাবে অত্যাচার নির্যাতন ও হুমকি ধমকি দেয় সরল বাহিনী। ফলে সন্ত্রাসী সরলের ভয়ে কেহ প্রতিবাদ করার সাহস পায়না। তাই সরল ও তার বাহিনীর বিরুদ্ধে জেলা পুলিশ সুপার ও র‌্যাবের হস্তক্ষেপ কামনা করেন এলাকার সচেতন মহল।
এ বিষয়ে সরলের সাথে যোগযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তা সম্ভব হয়নি।