নারায়ণগঞ্জ ০৪:০০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সিদ্ধিরগঞ্জে প্রশাসনের অভিযানে স্বস্তিতে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা, চাঁদাবাজরা আত্নগোপনে

  • প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০২:০৪:৫১ অপরাহ্ন, শনিবার, ৬ জুলাই ২০১৯
  • ২৫ বার পড়া হয়েছে

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি :
নারায়ণগঞ্জে পুলিশ সুপার হারুন-অর রশিদ দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে ঘুরে দাড়িয়েছে পুলিশ সদস্যরা। অপরাধীদের বিরুদ্ধে পুলিশ সুপারের জিহাদ ঘোষনার পর নারায়ণগঞ্জে অপরাধীদের তৎপরতা অনেক কমেছে। বিভিন্ন অপরাধীদের আইনের আওতায় এনে বিচারের কাঁঠগড়ায় দাড় করিয়েছেন এসপি হারুন-অর রশিদ। পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব সদস্যদের অপরাধীদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকায় অপরাধীরা গা ঢাকা দিয়েছে। সিদ্ধিরগঞ্জে র‌্যাব-পুলিশের তৎপরতা থাকায় শিমরাইল ফুটপাত থেকে চাঁদা আদায়কারীরা এবং চাঁদাবাজদের শেল্টারদাতারা আতœগোপন করেছে। রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় থেকে তারা দলের নাম ভাঙ্গিয়ে চিটাগাংরোড শিমরাইল মোড় থেকে প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ টাকা চাঁদাবাজি করতো। সিদ্ধিরগঞ্জ চিটাগাংরোড শিমরাইল মোড় থেকে সাধারন ফুটপাতের হকারদের জিম্মি করে একদল চাঁদাবাজ চক্র প্রতিদিন ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা করে চাঁদা নিতো। চিটাগাংরোডে প্রায় ১ হাজারেরও বেশী ফুটপাতে দোকান রয়েছে। যখন চাঁদাবাজদের অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করা শুরু হয় টিক তখনই চাঁদাবাজ এবং তাদের শেল্টারদাতারা গাঢাকা দিয়েছে। সিদ্ধিরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মীর শাহীন পারভেজের নেতৃত্বে চিটাগারোড শিমরাইল মোড়ে পুলিশের তৎপরতা থাকায় চাঁদাবাজরা এখন চাঁদাবাজি করতে পারছেনা। সিদ্ধিরগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ মীর শাহীন পারভেজ বলেন, নারায়ণগঞ্জের সুযোগ্য পুলিশ সুপার স্যারের নির্দেশে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে অনেক অপরাধীদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি। কোন চাঁদাবাজ, মাদক ব্যবসায়ী, ভূমিদস্যুসহ কোন অপরাধীদের ছাড় দেওয়া হবেনা। অপরাধ দমনে পুলিশের পাশাপাশি জনগনকে এগিয়ে আসার আহবান জানান মীর শাহীন পারভেজ এবং অপরাধীদের বিষয়ে তথ্য দেওয়ার জন্য সকলের প্রতি অনুরোধ করেন।
চিটাগাংরোডের কয়েকজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী বলেন, ফুটপাতে প্রশাসনের নিয়মিত ডিউটি করার কারনে চাঁদাবাজরা পালিয়েছে। এখন একটু স্বস্তিতে ব্যবসা করতে পারছি। এসব চাঁদাবাজদের চাঁদা না দিলে ব্যবসায়ীদের মারধরসহ নানা ধরনের হুমকি দিতো। এসপি সাহেব নারায়ণগঞ্জে যোগদান করার পর থেকে বিভিন্ন চাঁদাবাজরা গ্রেফতার হওয়াতে চাঁদাবাজরা এখন আর চাঁদা আদায় করতে আসেনা। সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি শাহীন পারভেজ বিভিন্ন সময়ে ফুটপাতে এসে ঘুরে যান এবং কেউ চাঁদা দাবী করে কিনা তা জিজ্ঞাসা করেন। ব্যবসা করতে কোন ধরনের অসুবিধা হয় কিনা তারও খোজ-খবর নেন। অপরাধ নির্মূল করতে চাঁদাবাজদের শেল্টারদাতাদের অতি দ্রæত গ্রেফতারের দাবী জানান ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা।

ট্যাগস :

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

জনপ্রিয় সংবাদ

সিদ্ধিরগঞ্জে প্রশাসনের অভিযানে স্বস্তিতে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা, চাঁদাবাজরা আত্নগোপনে

আপডেট সময় : ০২:০৪:৫১ অপরাহ্ন, শনিবার, ৬ জুলাই ২০১৯

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি :
নারায়ণগঞ্জে পুলিশ সুপার হারুন-অর রশিদ দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে ঘুরে দাড়িয়েছে পুলিশ সদস্যরা। অপরাধীদের বিরুদ্ধে পুলিশ সুপারের জিহাদ ঘোষনার পর নারায়ণগঞ্জে অপরাধীদের তৎপরতা অনেক কমেছে। বিভিন্ন অপরাধীদের আইনের আওতায় এনে বিচারের কাঁঠগড়ায় দাড় করিয়েছেন এসপি হারুন-অর রশিদ। পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব সদস্যদের অপরাধীদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকায় অপরাধীরা গা ঢাকা দিয়েছে। সিদ্ধিরগঞ্জে র‌্যাব-পুলিশের তৎপরতা থাকায় শিমরাইল ফুটপাত থেকে চাঁদা আদায়কারীরা এবং চাঁদাবাজদের শেল্টারদাতারা আতœগোপন করেছে। রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় থেকে তারা দলের নাম ভাঙ্গিয়ে চিটাগাংরোড শিমরাইল মোড় থেকে প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ টাকা চাঁদাবাজি করতো। সিদ্ধিরগঞ্জ চিটাগাংরোড শিমরাইল মোড় থেকে সাধারন ফুটপাতের হকারদের জিম্মি করে একদল চাঁদাবাজ চক্র প্রতিদিন ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা করে চাঁদা নিতো। চিটাগাংরোডে প্রায় ১ হাজারেরও বেশী ফুটপাতে দোকান রয়েছে। যখন চাঁদাবাজদের অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করা শুরু হয় টিক তখনই চাঁদাবাজ এবং তাদের শেল্টারদাতারা গাঢাকা দিয়েছে। সিদ্ধিরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মীর শাহীন পারভেজের নেতৃত্বে চিটাগারোড শিমরাইল মোড়ে পুলিশের তৎপরতা থাকায় চাঁদাবাজরা এখন চাঁদাবাজি করতে পারছেনা। সিদ্ধিরগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ মীর শাহীন পারভেজ বলেন, নারায়ণগঞ্জের সুযোগ্য পুলিশ সুপার স্যারের নির্দেশে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে অনেক অপরাধীদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি। কোন চাঁদাবাজ, মাদক ব্যবসায়ী, ভূমিদস্যুসহ কোন অপরাধীদের ছাড় দেওয়া হবেনা। অপরাধ দমনে পুলিশের পাশাপাশি জনগনকে এগিয়ে আসার আহবান জানান মীর শাহীন পারভেজ এবং অপরাধীদের বিষয়ে তথ্য দেওয়ার জন্য সকলের প্রতি অনুরোধ করেন।
চিটাগাংরোডের কয়েকজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী বলেন, ফুটপাতে প্রশাসনের নিয়মিত ডিউটি করার কারনে চাঁদাবাজরা পালিয়েছে। এখন একটু স্বস্তিতে ব্যবসা করতে পারছি। এসব চাঁদাবাজদের চাঁদা না দিলে ব্যবসায়ীদের মারধরসহ নানা ধরনের হুমকি দিতো। এসপি সাহেব নারায়ণগঞ্জে যোগদান করার পর থেকে বিভিন্ন চাঁদাবাজরা গ্রেফতার হওয়াতে চাঁদাবাজরা এখন আর চাঁদা আদায় করতে আসেনা। সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি শাহীন পারভেজ বিভিন্ন সময়ে ফুটপাতে এসে ঘুরে যান এবং কেউ চাঁদা দাবী করে কিনা তা জিজ্ঞাসা করেন। ব্যবসা করতে কোন ধরনের অসুবিধা হয় কিনা তারও খোজ-খবর নেন। অপরাধ নির্মূল করতে চাঁদাবাজদের শেল্টারদাতাদের অতি দ্রæত গ্রেফতারের দাবী জানান ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা।