নারায়ণগঞ্জ ১১:০৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১৯ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
মাইক্রোসফট ইনোভেটিভ এডুকেটর এক্সপার্ট বাংলাদেশ কমিউনিটি মিটআপ ২০২৩ অনুষ্ঠিত আদমজী ইপিজেডকে অশান্ত করছে জনপ্রতিনিধিরা রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা সিদ্ধিরগঞ্জ রিপোর্টার্স ক্লাবের কর্মকর্তাদের সাথে মহিলা লীগ নেত্রীর শুভেচ্ছা বিনিময় না’গঞ্জ কারাগারে হাজতীর মৃত্যু ফতুল্লায় চোরাইকৃত ট্যাংকলড়ী উদ্ধার আড়াইহাজারের মিথিলা টেক্সটাইল ঘুরে গেলেন ৮ দেশের রাষ্ট্রদূতসহ ১৮ দেশের প্রতিনিধি সিদ্ধিরগঞ্জ রিপোর্টার্স ক্লাবের কর্মকর্তাদের সাথে কাউন্সিলর ইকবাল হোসেনের মতবিনিময় ফতুল্লা ব্লাড ডোনার্সের উদ্যোগে শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ শিক্ষা সিলেবাস বাতিলের দাবিতে খেলাফত মজলিসের বিক্ষোভ মিছিল সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরামের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শহরে নারী সমাবেশ ও মিছিল

সিদ্ধিরগঞ্জের মাদক সম্রাজ্ঞী রোকসানা অধরা

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রনিনিধি : সিদ্ধিরগঞ্জের আলোচিত মাদক সম্রাজ্ঞী রোকসানা অধরা। পঞ্ছায়েত মাদবর কর্তৃক নিজ এলাকা থেকে বিতারিত হয়ে রোকসানা ওমরপুর ও সাইলোগেইট এলাকায় নতুন আস্তানা গড়ে তুলে অভিনব কৌশলে মাদক ব্যবসা করে যাচ্ছে। রহস্যজনক কারণে স্থানীয় প্রশাসন এই মাদক সম্রাজ্ঞীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহন করছেনা বলে স্থানীয়দের অভিযোগ।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নাসিক ৪ নং ওয়ার্ড সিদ্ধিরগঞ্জের বাগানবাড়ী এলাকার আলোচিত মাদক সম্রাজ্ঞী রোকসানা নিজ এলাকা থেকে বিতারিত হলেও তার মাদক ব্যবসা বন্ধ হচ্ছেনা। বিলুপ্ত সিদ্ধিরগঞ্জ পৌরসভার সাবেক প্রশাসক আলাহাজ্ব আবদুল মতিন প্রধানের নেতৃত্বে এলাকার পঞ্ছায়েত মাদবরা রোকসানাকে বাগানবাড়ী এলাকা থেকে বিতারিত করে দেয়। নিজ এলাকা থেকে পঞ্ছায়েত মাদবর কর্তৃক বিতারিত হয়ে রোকসানা কিছু দিন আত্বগোপনে থেকে নাসিক ৫ নং ওয়ার্ডের সাইলোগেইট আমিজ উদ্দিন ভবন ও ওমরপুর এলাকায় নতুন আস্তানা গড়ে তুলে আবার শুরু করেছে মাদক ব্যবসা।
জানা গেছে, নারী-পুরুষসহ শক্তিশালী একটি সঙ্গবদ্ধ চক্র গড়ে তুলেছে রোকসানা। কমপক্ষে ১০/১২ জন মাদক ব্যবসায়ী রয়েছে এ চক্রের। এ চক্রটি পাইকারী ও খুচরা ভাবে গাঁজা, ইয়াবা ট্যাবলেট এবং হেরোইন বিক্রি করে থাকে। পাইকাররা ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে গাঁজা, হেরোইন ও ইয়াবার বড় বড় চালান রোকসানার কাছে পৌঁছে দেয়। তার পর রোকসনা সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকার বিভিন্ন খুচরা মাদক বিক্রেতাদের কাছে তা সরবরাহ করে। পাইকারী বাদেও রোকসানা তার বাহিনী দিয়ে খুচরা ভাবেও মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। স্থানীয় প্রশাসনের একশ্রেণীর অসাধু অফিসার ও প্রভাবশালী ব্যক্তিদের ম্যানেজ করে রোকসানা মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে বলে সূত্রটির দাবি।
বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, জেলা গোয়েন্দা ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ মাদকদ্রব্যসহ একাধিকবার রোকসানাকে গ্রেফতার করেছে। তার বিরুদ্ধে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একাধিক মাদক মামলা রয়েছে। যতবারই সে গ্রেফতার হয়েছে ততবারই কিছুদিন পর আদালত থেকে জামিনে বের হয়ে মাদক ব্যবসা অব্যাহত রাখছে। কিছুতেই সে মাদক ব্যবসা বন্ধ না করায় এলাকার পরিবেশ ও যুবসমাজকে রক্ষা করতে স্থানীয় পঞ্ছায়েত কমিটির লোকজন রোকসানাকে এলাকা থেকে বিতারিত করে দেয়। তার পরও এই মাদক সম্রাজ্ঞী তার মাদক ব্যবসা বন্ধ করছেনা। গত কয়েক মাস ধরে সে সাইলো ও ওমরপুর এলাকায় নতুন কৌশলে মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। তাই মাদকের বিষাক্ত ছোঁঁবল থেকে স্কুল কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থী ও যুবসমাজকে রক্ষা করতে রোকসানার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহন করার জন্য জেলা পুলিশ সুপার ও র‌্যাব-১১ বাহিনীর হস্তক্ষেপ কামনা করছেন সচেতন মহল।

ট্যাগস :

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

জনপ্রিয় সংবাদ

মাইক্রোসফট ইনোভেটিভ এডুকেটর এক্সপার্ট বাংলাদেশ কমিউনিটি মিটআপ ২০২৩ অনুষ্ঠিত

সিদ্ধিরগঞ্জের মাদক সম্রাজ্ঞী রোকসানা অধরা

আপডেট সময় : ০২:৫৩:২২ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৯ মে ২০১৮

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রনিনিধি : সিদ্ধিরগঞ্জের আলোচিত মাদক সম্রাজ্ঞী রোকসানা অধরা। পঞ্ছায়েত মাদবর কর্তৃক নিজ এলাকা থেকে বিতারিত হয়ে রোকসানা ওমরপুর ও সাইলোগেইট এলাকায় নতুন আস্তানা গড়ে তুলে অভিনব কৌশলে মাদক ব্যবসা করে যাচ্ছে। রহস্যজনক কারণে স্থানীয় প্রশাসন এই মাদক সম্রাজ্ঞীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহন করছেনা বলে স্থানীয়দের অভিযোগ।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নাসিক ৪ নং ওয়ার্ড সিদ্ধিরগঞ্জের বাগানবাড়ী এলাকার আলোচিত মাদক সম্রাজ্ঞী রোকসানা নিজ এলাকা থেকে বিতারিত হলেও তার মাদক ব্যবসা বন্ধ হচ্ছেনা। বিলুপ্ত সিদ্ধিরগঞ্জ পৌরসভার সাবেক প্রশাসক আলাহাজ্ব আবদুল মতিন প্রধানের নেতৃত্বে এলাকার পঞ্ছায়েত মাদবরা রোকসানাকে বাগানবাড়ী এলাকা থেকে বিতারিত করে দেয়। নিজ এলাকা থেকে পঞ্ছায়েত মাদবর কর্তৃক বিতারিত হয়ে রোকসানা কিছু দিন আত্বগোপনে থেকে নাসিক ৫ নং ওয়ার্ডের সাইলোগেইট আমিজ উদ্দিন ভবন ও ওমরপুর এলাকায় নতুন আস্তানা গড়ে তুলে আবার শুরু করেছে মাদক ব্যবসা।
জানা গেছে, নারী-পুরুষসহ শক্তিশালী একটি সঙ্গবদ্ধ চক্র গড়ে তুলেছে রোকসানা। কমপক্ষে ১০/১২ জন মাদক ব্যবসায়ী রয়েছে এ চক্রের। এ চক্রটি পাইকারী ও খুচরা ভাবে গাঁজা, ইয়াবা ট্যাবলেট এবং হেরোইন বিক্রি করে থাকে। পাইকাররা ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে গাঁজা, হেরোইন ও ইয়াবার বড় বড় চালান রোকসানার কাছে পৌঁছে দেয়। তার পর রোকসনা সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকার বিভিন্ন খুচরা মাদক বিক্রেতাদের কাছে তা সরবরাহ করে। পাইকারী বাদেও রোকসানা তার বাহিনী দিয়ে খুচরা ভাবেও মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। স্থানীয় প্রশাসনের একশ্রেণীর অসাধু অফিসার ও প্রভাবশালী ব্যক্তিদের ম্যানেজ করে রোকসানা মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে বলে সূত্রটির দাবি।
বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, জেলা গোয়েন্দা ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ মাদকদ্রব্যসহ একাধিকবার রোকসানাকে গ্রেফতার করেছে। তার বিরুদ্ধে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একাধিক মাদক মামলা রয়েছে। যতবারই সে গ্রেফতার হয়েছে ততবারই কিছুদিন পর আদালত থেকে জামিনে বের হয়ে মাদক ব্যবসা অব্যাহত রাখছে। কিছুতেই সে মাদক ব্যবসা বন্ধ না করায় এলাকার পরিবেশ ও যুবসমাজকে রক্ষা করতে স্থানীয় পঞ্ছায়েত কমিটির লোকজন রোকসানাকে এলাকা থেকে বিতারিত করে দেয়। তার পরও এই মাদক সম্রাজ্ঞী তার মাদক ব্যবসা বন্ধ করছেনা। গত কয়েক মাস ধরে সে সাইলো ও ওমরপুর এলাকায় নতুন কৌশলে মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। তাই মাদকের বিষাক্ত ছোঁঁবল থেকে স্কুল কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থী ও যুবসমাজকে রক্ষা করতে রোকসানার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহন করার জন্য জেলা পুলিশ সুপার ও র‌্যাব-১১ বাহিনীর হস্তক্ষেপ কামনা করছেন সচেতন মহল।