নারায়ণগঞ্জ ১০:২৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
সিদ্ধিরগঞ্জে মসজিদের বিরোধ নিস্পত্তি করায় হাজী ইয়াসিন মিয়ার বিরুদ্ধে অপবাদ সিদ্ধিরগঞ্জে ব্যবসায়ীর উপর হামলার ঘটনায় সন্ত্রাসী পানি আক্তারের বিরুদ্ধে মামলা সিদ্ধিরগঞ্জে অটোরিকশার ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী নাঈম নিহত সিদ্ধিরগঞ্জে জমি দখল করতে সজু বাহিনীর হামলা আদমজী ইপিজেডের ব্যবসা ছিনিয়ে নিতে আক্তার বাহিনীর হামলায় আহত-২ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ন সম্পাদক হওয়ায় সিদ্ধিরগঞ্জে দেলোয়ারকে সংবর্ধনা ডিসিদের প্রতি ২৫ নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রী আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি পবিত্র শবে মেরাজ সিদ্ধিরগঞ্জে ডিবি পরিচয়ে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে গ্রেফতার ৬ সিদ্ধিরগঞ্জে অভিযানে  ৩ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা ভোক্তা অধিকার

ধানের দাম ১,৫০০ টাকা মণ নির্ধারণের দাবি ন্যাপ’র

  • প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৮:২৯:০৩ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ এপ্রিল ২০২১
  • ৩৮ বার পড়া হয়েছে

বিশেষ প্রতিনিধি : কৃষকের স্বার্থ রক্ষায় বোরো ধানের দাম মণপ্রতি ১৫০০ টাকা নির্ধারণ ও প্রতি ইউনিয়নে সরকারী ক্রয়কেন্দ্রের মাধ্যমে কৃষকের নিকট থেকে সরাসরি কমপক্ষে ৭০ লক্ষ টন ধান সরকারিভাবে ক্রয় করার জন্য জোর দাবী জানিয়েছে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ।

সোমবার (২৬ এপ্রিল) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে পার্টির চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া সরকারের নিকট এই দাবী জানান।

তারা বলেন, দেশের হাওর অঞ্চলগুলোতে বোরো ধান কাটা শুরু হলেও সরকার এখন পর্যন্ত সরকারীভাবে ধান ক্রয়ের জন্য মূল্য নির্ধারণ করেনি যা দু:খজনক। ধানের মূল্য নির্ধারণ না করলে কৃষকরা প্রতিনিয়ত প্রতারিত হয়, যার ফলশ্রুতিতে তাদের কৃষি কাজে টিকে থাখা দুরহ হয়ে পড়বে। ধানের উৎপাদন খরচের সঙ্গে ৪০ শতাংশ মূল্য সংযোজন করলে ধানের মূল্য ১,৫০০ টাকা নির্ধারণ করা প্রয়োজন।

নেতৃদ্বয় বলেন, প্রতিবছরই দেখা যায় সরকার কৃষকদের নিকট থেকে যে মূল্যে ধান ক্রয়ের ঘোষণা দিয়ে থাকে সে মূল্য কৃষকরা পায় না দূর্নীতিবাজ সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারী ও স্থানীয় ফরিায়াদের যোগসাজশের কারনে। ফলে সরকারের উচিত হবে কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ধান ক্রয় করা। কোন টাউন দালাল বা ফরিয়ারা যাতে করে কৃষকদের প্রতারিত করতে না পারে। তাই সরকার শুধু ধানের মূল্য নির্ধারন করলেই হবে না কৃষকরা যাতে মূল্যে সরাসরি ধান বিক্রি করতে পারে তা নিশ্চিত করতে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহন করতে হবে।

তারা বলেন, গত বছরও সরকার ধানের দাম ১০৪০ টাকা মণ নির্ধারণ করেছিল, কিন্তু তখনও খোলা বাজারে সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি মূল্যে ধান বিক্রি হচ্ছিল, ফলে কৃষকরা ক্ষতির সম্মুক্ষিন হয়েছিল। অন্যদিকে সরকার ধান কম ক্রয় করে আর চাল বেশী ক্রয় করে, য়ার ফলে চাতাল মালিকরা লাভবান হলেও কৃষক লাভবান হতে পারে না।

নেতৃদ্বয় আরো বলেন, দেশে সরকারি মজুদ গত দুই দশকের মধ্যে সর্বনিম্ম পর্যায়ে ঠেকেছে। তাই এবছর কমপক্ষে ৭০ লক্ষ টন ধান সরাসরি কৃষকদের নিকট থেকে ক্রয় করা উচিত। তা নাহলে ব্যবসায়ীরা বাজার সিন্ডিকেট কারসাজির মাধ্যমে সঙ্কট সৃষ্টি করার সুযোগ পাবে। এবছর সরকারের নিকট চাল মজুদ আছে মাত্র ৩ লক্ষ টন যেটা গতবছর ছিলো ১২ লাখ টন। কমপক্ষে ২০ লাখ টন খাদ্য মজুদ থাকা প্রয়োজন, তা না হলে বাজার নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয়।

তারা ফরিয়াদের সুযোগ না দিয়ে সরাসরি কৃষকদের নিকট থাকে ধান কেনার জন্য সরকারের নিকট জোর দাবি জানান।

ট্যাগস :

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

জনপ্রিয় সংবাদ

সিদ্ধিরগঞ্জে মসজিদের বিরোধ নিস্পত্তি করায় হাজী ইয়াসিন মিয়ার বিরুদ্ধে অপবাদ

ধানের দাম ১,৫০০ টাকা মণ নির্ধারণের দাবি ন্যাপ’র

আপডেট সময় : ০৮:২৯:০৩ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ এপ্রিল ২০২১

বিশেষ প্রতিনিধি : কৃষকের স্বার্থ রক্ষায় বোরো ধানের দাম মণপ্রতি ১৫০০ টাকা নির্ধারণ ও প্রতি ইউনিয়নে সরকারী ক্রয়কেন্দ্রের মাধ্যমে কৃষকের নিকট থেকে সরাসরি কমপক্ষে ৭০ লক্ষ টন ধান সরকারিভাবে ক্রয় করার জন্য জোর দাবী জানিয়েছে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ।

সোমবার (২৬ এপ্রিল) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে পার্টির চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া সরকারের নিকট এই দাবী জানান।

তারা বলেন, দেশের হাওর অঞ্চলগুলোতে বোরো ধান কাটা শুরু হলেও সরকার এখন পর্যন্ত সরকারীভাবে ধান ক্রয়ের জন্য মূল্য নির্ধারণ করেনি যা দু:খজনক। ধানের মূল্য নির্ধারণ না করলে কৃষকরা প্রতিনিয়ত প্রতারিত হয়, যার ফলশ্রুতিতে তাদের কৃষি কাজে টিকে থাখা দুরহ হয়ে পড়বে। ধানের উৎপাদন খরচের সঙ্গে ৪০ শতাংশ মূল্য সংযোজন করলে ধানের মূল্য ১,৫০০ টাকা নির্ধারণ করা প্রয়োজন।

নেতৃদ্বয় বলেন, প্রতিবছরই দেখা যায় সরকার কৃষকদের নিকট থেকে যে মূল্যে ধান ক্রয়ের ঘোষণা দিয়ে থাকে সে মূল্য কৃষকরা পায় না দূর্নীতিবাজ সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারী ও স্থানীয় ফরিায়াদের যোগসাজশের কারনে। ফলে সরকারের উচিত হবে কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ধান ক্রয় করা। কোন টাউন দালাল বা ফরিয়ারা যাতে করে কৃষকদের প্রতারিত করতে না পারে। তাই সরকার শুধু ধানের মূল্য নির্ধারন করলেই হবে না কৃষকরা যাতে মূল্যে সরাসরি ধান বিক্রি করতে পারে তা নিশ্চিত করতে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহন করতে হবে।

তারা বলেন, গত বছরও সরকার ধানের দাম ১০৪০ টাকা মণ নির্ধারণ করেছিল, কিন্তু তখনও খোলা বাজারে সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি মূল্যে ধান বিক্রি হচ্ছিল, ফলে কৃষকরা ক্ষতির সম্মুক্ষিন হয়েছিল। অন্যদিকে সরকার ধান কম ক্রয় করে আর চাল বেশী ক্রয় করে, য়ার ফলে চাতাল মালিকরা লাভবান হলেও কৃষক লাভবান হতে পারে না।

নেতৃদ্বয় আরো বলেন, দেশে সরকারি মজুদ গত দুই দশকের মধ্যে সর্বনিম্ম পর্যায়ে ঠেকেছে। তাই এবছর কমপক্ষে ৭০ লক্ষ টন ধান সরাসরি কৃষকদের নিকট থেকে ক্রয় করা উচিত। তা নাহলে ব্যবসায়ীরা বাজার সিন্ডিকেট কারসাজির মাধ্যমে সঙ্কট সৃষ্টি করার সুযোগ পাবে। এবছর সরকারের নিকট চাল মজুদ আছে মাত্র ৩ লক্ষ টন যেটা গতবছর ছিলো ১২ লাখ টন। কমপক্ষে ২০ লাখ টন খাদ্য মজুদ থাকা প্রয়োজন, তা না হলে বাজার নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয়।

তারা ফরিয়াদের সুযোগ না দিয়ে সরাসরি কৃষকদের নিকট থাকে ধান কেনার জন্য সরকারের নিকট জোর দাবি জানান।