হিজাব বিতর্কে আল্লাহু আকবার বলে কলেজছাত্রী মুসকানের প্রতিবাদ

অনলাইন ডেস্ক : ভারতের কর্ণাটকের কলেজছাত্রী মুসকান হিন্দু জঙ্গীদের ভয় না পেয়ে মুখের উপর আল্লাহু আকবার বলে প্রতিবাদ করেছে। এটা পুরো মুসলিম বিশ্বের বহু মানুষকে আনন্দিত করেছে, অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে।

মুসকানকে সাহায্য করতে এগিয়ে এসেছে তার শিক্ষকরা, এরপর তার পক্ষে সরব হয়েছে মানবাধিকার কর্মী, গনমাধ্যম ও সাধারণ মানুষরা। এদের অনেকেই হিন্দু ধর্মের মানুষ, কিন্তু মুসকানের ঘটনাটি তারা ধর্মের ভিত্তিতে না দেখে, মানবিকতা ও মানবাধিকারের দৃষ্টিকোণ থেকে দেখেছে।

মুসকান পরে তার প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে তাকে উত্তক্তকারীদের কোন শাস্তি দাবী করেনি। শুধু তাদের এগুলো আর না করার আহবান জানিয়েছে। এই মহানুভবতা তাকে উত্যক্তকারীদের চেয়ে অনেক উপরে আসন দিয়েছে।

এদিকে কর্নাটকে হিজাব ইস্যুতে উত্তেজনার মধ্যে মুখ খুলেছেন শান্তিতে নোবেল পুরস্কার বিজয়ী মালালা ইউসুফজাই। ক্লাসরুমে হিজাব পরার দাবিতে সেখানে যে ৬ ছাত্রী লড়াই করছেন, তাদের প্রতি সমর্থন দিয়েছেন তিনি।

ভারতের কর্নাটকে বেশ কিছুদিন ধরে বিক্ষোভ করছেন ছাত্রীরা। সেখানে মুসলিম ছাত্রীদেরকে ক্লাসরুমে স্কার্ফ বা হিজাব পরতে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে কলেজের ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ। তাতে সমর্থন দিয়েছে উগ্র ডানপন্থি বিজেপির সমর্থকরা। এর প্রতিবাদে ওই ৬ মুসলিম ছাত্রীর সঙ্গে বিক্ষোভে যোগ দিয়েছেন অন্য কলেজের শিক্ষার্থীরা। কর্নাটকে এই বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ছে। মুসলিম ছাত্রীদের স্কার্ফ বা হিজাব পরায় নিষেধাজ্ঞা দেয়াকে ‘হরিফাইং’ বা ভীতিকর বলে বর্ণনা করেছেন মালালা ইউসুফজাই।

এ ঘটনায় কর্নাটকজুড়ে ধর্মীয় উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। কোথাও কোথাও সহিংসতা দেখা দিয়েছে। এর ফলে সেখানে স্কুল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে তিনদিনের জন্য। এই পরিস্থিতি ভারতের মিডিয়ায় জাতীয় সংবাদ শিরোনাম হয়েছে। অবশেষে বিষয়টি উঠেছে কর্নাটকের হাইকোর্টে। যে ৬ ছাত্রীকে হিজাব পরায় বাধা দেয়া হয়েছে, তাদের একজন আদালতে আবেদন জমা দিয়েছেন। তাতে তিনি দাবি করেছেন, সংবিধানে ধর্মীয় স্বাধীনতার যে গ্যারান্টি দেয়া হয়েছে, তার অধীনে একটি মৌলিক অধিকার হলো হিজাব পরা।

এদিকে হিজাব বিতর্কে ছাত্রীদের সমর্থন জানিয়ে একটি টুইট করেছেন কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। বুধবার প্রিয়াঙ্কা টুইট বার্তায় বলেন, নারীরা কোন ধরনের কাপড় পরবে, সেটি তাদের একান্ত ব্যক্তিগত এবং সংবিধান দ্বারা স্বীকৃত অধিকার।