নারায়ণগঞ্জ ০৬:০৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২৬ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
অপরাধি যেই হোক ছাড় পাবেনা : ওসি গোলাম মোস্তফা মাইক্রোসফট ইনোভেটিভ এডুকেটর এক্সপার্ট বাংলাদেশ কমিউনিটি মিটআপ ২০২৩ অনুষ্ঠিত আদমজী ইপিজেডকে অশান্ত করছে জনপ্রতিনিধিরা রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা সিদ্ধিরগঞ্জ রিপোর্টার্স ক্লাবের কর্মকর্তাদের সাথে মহিলা লীগ নেত্রীর শুভেচ্ছা বিনিময় না’গঞ্জ কারাগারে হাজতীর মৃত্যু ফতুল্লায় চোরাইকৃত ট্যাংকলড়ী উদ্ধার আড়াইহাজারের মিথিলা টেক্সটাইল ঘুরে গেলেন ৮ দেশের রাষ্ট্রদূতসহ ১৮ দেশের প্রতিনিধি সিদ্ধিরগঞ্জ রিপোর্টার্স ক্লাবের কর্মকর্তাদের সাথে কাউন্সিলর ইকবাল হোসেনের মতবিনিময় ফতুল্লা ব্লাড ডোনার্সের উদ্যোগে শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ শিক্ষা সিলেবাস বাতিলের দাবিতে খেলাফত মজলিসের বিক্ষোভ মিছিল

কিশোরগ্যাং বন্ধুর হাতে কলেজ ছাত্র খুন গ্রেফতার-১

  • প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:৫৯:৫৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৮ জুলাই ২০২২
  • ৫৯ বার পড়া হয়েছে

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি : নারায়ণগঞ্জ সিদ্ধিরগঞ্জে কিশোরগ্যাং চক্রের সদস্যদের ছুরিকাঘাতে ইমন (২৭) নামে এক ছাত্র নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরো দুইজন। পূর্ব শত্রæতার জের ধরে গত বুধবার সন্ধ্যা সানারপাড় বাঘমারা এলাকায় মামা ভাগিনা গলিতে এঘটনা ঘটে। এঘটনায় মশিউর রহমান রাজু নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
নিহত ইমন আদর্শনগর এলাকার শাহ আলমের ছেলে। স্থানীয় আলী আকবর মডেল স্কুল এন্ড কলেজের ছাত্র ছিলেন। আহতদের মধ্যে শাহরিয়ার জয় অনার্সের ও তরিকুজ্জামান রনি সোনারগাঁয়ের নাজিম উদ্দিন ভূঁইয়া ডিগ্রী কলেজের ছাত্র। তারা আশঙ্কা জনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
নিহতের স্বজনদের বরাত দিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক আব্দুল ওহাব জানান, নিহত ইমন ও হামলাকারী কিশোরগ্যাং গ্রæপের নেতা রাসেল ওরফে ডংকু রাসেল বন্ধু ছিলেন। রাসেল বিপদগামী হয়ে অপকর্মে জড়িয়ে পড়ায় ইমন তার সঙ্গ ত্যাগ করেন। এতে রাসেলের সঙ্গে ইমনের শুত্রæতা তৈরি হয়। ক্ষিপ্ত হয়ে রাসেল বুধবার সকালে তার গ্যাংয়ের আট দশজন সদস্য নিয়ে ইমনকে রাস্তা থেকে ধরে নিয়ে মারধর করে। পরে সন্ধ্যার দিকে ইমন, শাহরিয়ার জয় ও তরিকুজ্জামান রনিকে বাঘমারা মামা ভাগিনা গলিতে পেয়ে রাসেল ও তার সঙ্গীরা হামলা চালায়। এসময় ইমন ও জয়কে সন্ত্রাসী রাসেল ও মশিউর রহমান রাজু ছুরিকাঘাত করে। পরে স্থানীয় লোকজন এসে তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ইমনকে মৃত ঘোষণা করেন। আহত জয়ের আবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানায় তার বোন ফারজানা।
নিহতের মা শাহিনুর বেগম বলেন, আমার ছেলের উপর হামলার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দুইজনকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখি। পরে জানতে পারি এঘটনায় জড়িত রয়েছে সন্ত্রাসী রাসেল, মশিউর রহমান রাজু, স্বপন, আব্দূল খলিল, মো. ইয়াসিন, রাজিব ও বিজয়।
সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি মশিউর রহমান বলেন, এঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। জড়িত অন্যদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। হত্যা মামলা দায়ের প্রক্রিয়াধিন।

ট্যাগস :

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

অপরাধি যেই হোক ছাড় পাবেনা : ওসি গোলাম মোস্তফা

কিশোরগ্যাং বন্ধুর হাতে কলেজ ছাত্র খুন গ্রেফতার-১

আপডেট সময় : ১২:৫৯:৫৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৮ জুলাই ২০২২

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি : নারায়ণগঞ্জ সিদ্ধিরগঞ্জে কিশোরগ্যাং চক্রের সদস্যদের ছুরিকাঘাতে ইমন (২৭) নামে এক ছাত্র নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরো দুইজন। পূর্ব শত্রæতার জের ধরে গত বুধবার সন্ধ্যা সানারপাড় বাঘমারা এলাকায় মামা ভাগিনা গলিতে এঘটনা ঘটে। এঘটনায় মশিউর রহমান রাজু নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
নিহত ইমন আদর্শনগর এলাকার শাহ আলমের ছেলে। স্থানীয় আলী আকবর মডেল স্কুল এন্ড কলেজের ছাত্র ছিলেন। আহতদের মধ্যে শাহরিয়ার জয় অনার্সের ও তরিকুজ্জামান রনি সোনারগাঁয়ের নাজিম উদ্দিন ভূঁইয়া ডিগ্রী কলেজের ছাত্র। তারা আশঙ্কা জনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
নিহতের স্বজনদের বরাত দিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক আব্দুল ওহাব জানান, নিহত ইমন ও হামলাকারী কিশোরগ্যাং গ্রæপের নেতা রাসেল ওরফে ডংকু রাসেল বন্ধু ছিলেন। রাসেল বিপদগামী হয়ে অপকর্মে জড়িয়ে পড়ায় ইমন তার সঙ্গ ত্যাগ করেন। এতে রাসেলের সঙ্গে ইমনের শুত্রæতা তৈরি হয়। ক্ষিপ্ত হয়ে রাসেল বুধবার সকালে তার গ্যাংয়ের আট দশজন সদস্য নিয়ে ইমনকে রাস্তা থেকে ধরে নিয়ে মারধর করে। পরে সন্ধ্যার দিকে ইমন, শাহরিয়ার জয় ও তরিকুজ্জামান রনিকে বাঘমারা মামা ভাগিনা গলিতে পেয়ে রাসেল ও তার সঙ্গীরা হামলা চালায়। এসময় ইমন ও জয়কে সন্ত্রাসী রাসেল ও মশিউর রহমান রাজু ছুরিকাঘাত করে। পরে স্থানীয় লোকজন এসে তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ইমনকে মৃত ঘোষণা করেন। আহত জয়ের আবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানায় তার বোন ফারজানা।
নিহতের মা শাহিনুর বেগম বলেন, আমার ছেলের উপর হামলার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দুইজনকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখি। পরে জানতে পারি এঘটনায় জড়িত রয়েছে সন্ত্রাসী রাসেল, মশিউর রহমান রাজু, স্বপন, আব্দূল খলিল, মো. ইয়াসিন, রাজিব ও বিজয়।
সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি মশিউর রহমান বলেন, এঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। জড়িত অন্যদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। হত্যা মামলা দায়ের প্রক্রিয়াধিন।