নারায়ণগঞ্জ ০৬:৫৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২৬ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
অপরাধি যেই হোক ছাড় পাবেনা : ওসি গোলাম মোস্তফা মাইক্রোসফট ইনোভেটিভ এডুকেটর এক্সপার্ট বাংলাদেশ কমিউনিটি মিটআপ ২০২৩ অনুষ্ঠিত আদমজী ইপিজেডকে অশান্ত করছে জনপ্রতিনিধিরা রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা সিদ্ধিরগঞ্জ রিপোর্টার্স ক্লাবের কর্মকর্তাদের সাথে মহিলা লীগ নেত্রীর শুভেচ্ছা বিনিময় না’গঞ্জ কারাগারে হাজতীর মৃত্যু ফতুল্লায় চোরাইকৃত ট্যাংকলড়ী উদ্ধার আড়াইহাজারের মিথিলা টেক্সটাইল ঘুরে গেলেন ৮ দেশের রাষ্ট্রদূতসহ ১৮ দেশের প্রতিনিধি সিদ্ধিরগঞ্জ রিপোর্টার্স ক্লাবের কর্মকর্তাদের সাথে কাউন্সিলর ইকবাল হোসেনের মতবিনিময় ফতুল্লা ব্লাড ডোনার্সের উদ্যোগে শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ শিক্ষা সিলেবাস বাতিলের দাবিতে খেলাফত মজলিসের বিক্ষোভ মিছিল

কয়েল কারখানার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি : নাসিক ২ নং ওয়ার্ডে ঘনবসতী আবাসিক এলাকায় অবৈধভাবে গড়ে উঠা পরিবেশ দূষনকারী কয়েল ও খানাটুলি তৈরি কারখানার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বন্দের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (১৫ জুলাই) সকাল ১১ টায় মৌচাক এলাকায় মানববন্ধন করেন এলাকাবাসী।
এসময় বক্তারা বলেন, এলাকার যারা বৈধভাবে বাসা-বাড়ীতে আবাসিক গ্যাস লাইন সংযোগ নিয়েছে তারা ঠিকমত গ্যাস পাচ্ছেনা। অথচ নিয়মিত বিল পরিশোধ করতে হচ্ছে। নারায়ণগঞ্জ তিতাস কর্মকর্তাদের সাথে গোপন আতাঁত করে আবাসিব এলাকায় যেসব কয়েল কারখানা মালিকরা বাণিজ্যিক ও অবৈধভাবে গ্যাস সংযোগ দিয়েছে তাদের কোন সমস্যা হচ্ছেনা। তারা মেশিনের মাধ্যমে অতিরিক্ত গ্যাস টেনে নেওয়ার ফলে বাসা-বাড়ীতে গ্যাস সংকট দেখা দিচ্ছে। এতে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে আবাসিক গ্যাস সংযোগকারি গ্রাহকদের। তিতাস কর্তৃপক্ষ মাঝে মাঝে এসব কারখানায় লোকদেখানো অভিজান চালিয়ে অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করলেও রাতারাতি কারখানা মালিকরা আবার সংযোগ দিয়ে দিচ্ছে। গ্যাস অফিসের দালাল ফয়েজ ও রনি মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে রাতের আঁধারে অবৈধ গ্যাস সংযোগ দিচ্ছে। বিষয়টি তিতাস কর্তৃপক্ষকে জানিয়েও কোন লাভ হচ্ছেনা।
বক্তারা আরো বলেন, আবাসিক এলাকায় কয়েল কারখানা গড়ে উঠায় জনস্বাস্থ্যের মারতœক ক্ষতি হচ্ছে। বিষাক্ত কেমিক্যালের গন্ধে কারখানার আশপাশের বাসিন্দারা শ্বাস কষ্ঠসহ নানা রোগ ব্যাধিতে আক্রান্ত হচ্ছে। পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই অবৈধভাবে গড়ে উঠে এসব কয়েল কারখানায় ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে জরিমানা,কারখানা সিলগালা ও অবৈধ গ্যাস,বিদ্যুৎ লাইন সংযোগ বহুবার বিচ্ছিন্ন করলেও কোন সুফল হচ্ছেনা। এতে গ্যাস খাতে সরকার মোটা অংকের রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে। তাই জনস্বার্থে পরিবেশ দূষনকারি ও জনস্বাস্থ্যের ক্ষতিকর এসব অবৈধ কয়েল কারখানা ও অবৈধ গ্যাস ব্যবহার বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহণের জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের উর্ধ্বতন মহলের হস্তক্ষেপ কামনা করেন মানববন্ধনে অংশ নেওয়া এলাকাবাসী।
অভিযোগ রয়েছে, মিজমিজি মতিন সড়ক চিশতিয়া বেকারী সংলগ্ন এলাকায় জাহাঙ্গীরের মালিকানাধিন বসুন্ধরা, আলমের ডিকে, পশ্চিমপাড়া হারুনের সোনালী, আসাদের সিভিল ম্যাজিক কয়েল কারখানায় কয়েক দফা অভিযান চালিয়ে অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। কিন্তু কারখানা মালিকরা রাতারাতি আবার সংযোগ দিয়ে বীর দর্পে কারখানা চালাচ্ছে।

ট্যাগস :

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

অপরাধি যেই হোক ছাড় পাবেনা : ওসি গোলাম মোস্তফা

কয়েল কারখানার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন

আপডেট সময় : ০১:২৯:০৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৫ জুন ২০২২

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি : নাসিক ২ নং ওয়ার্ডে ঘনবসতী আবাসিক এলাকায় অবৈধভাবে গড়ে উঠা পরিবেশ দূষনকারী কয়েল ও খানাটুলি তৈরি কারখানার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বন্দের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (১৫ জুলাই) সকাল ১১ টায় মৌচাক এলাকায় মানববন্ধন করেন এলাকাবাসী।
এসময় বক্তারা বলেন, এলাকার যারা বৈধভাবে বাসা-বাড়ীতে আবাসিক গ্যাস লাইন সংযোগ নিয়েছে তারা ঠিকমত গ্যাস পাচ্ছেনা। অথচ নিয়মিত বিল পরিশোধ করতে হচ্ছে। নারায়ণগঞ্জ তিতাস কর্মকর্তাদের সাথে গোপন আতাঁত করে আবাসিব এলাকায় যেসব কয়েল কারখানা মালিকরা বাণিজ্যিক ও অবৈধভাবে গ্যাস সংযোগ দিয়েছে তাদের কোন সমস্যা হচ্ছেনা। তারা মেশিনের মাধ্যমে অতিরিক্ত গ্যাস টেনে নেওয়ার ফলে বাসা-বাড়ীতে গ্যাস সংকট দেখা দিচ্ছে। এতে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে আবাসিক গ্যাস সংযোগকারি গ্রাহকদের। তিতাস কর্তৃপক্ষ মাঝে মাঝে এসব কারখানায় লোকদেখানো অভিজান চালিয়ে অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করলেও রাতারাতি কারখানা মালিকরা আবার সংযোগ দিয়ে দিচ্ছে। গ্যাস অফিসের দালাল ফয়েজ ও রনি মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে রাতের আঁধারে অবৈধ গ্যাস সংযোগ দিচ্ছে। বিষয়টি তিতাস কর্তৃপক্ষকে জানিয়েও কোন লাভ হচ্ছেনা।
বক্তারা আরো বলেন, আবাসিক এলাকায় কয়েল কারখানা গড়ে উঠায় জনস্বাস্থ্যের মারতœক ক্ষতি হচ্ছে। বিষাক্ত কেমিক্যালের গন্ধে কারখানার আশপাশের বাসিন্দারা শ্বাস কষ্ঠসহ নানা রোগ ব্যাধিতে আক্রান্ত হচ্ছে। পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই অবৈধভাবে গড়ে উঠে এসব কয়েল কারখানায় ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে জরিমানা,কারখানা সিলগালা ও অবৈধ গ্যাস,বিদ্যুৎ লাইন সংযোগ বহুবার বিচ্ছিন্ন করলেও কোন সুফল হচ্ছেনা। এতে গ্যাস খাতে সরকার মোটা অংকের রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে। তাই জনস্বার্থে পরিবেশ দূষনকারি ও জনস্বাস্থ্যের ক্ষতিকর এসব অবৈধ কয়েল কারখানা ও অবৈধ গ্যাস ব্যবহার বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহণের জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের উর্ধ্বতন মহলের হস্তক্ষেপ কামনা করেন মানববন্ধনে অংশ নেওয়া এলাকাবাসী।
অভিযোগ রয়েছে, মিজমিজি মতিন সড়ক চিশতিয়া বেকারী সংলগ্ন এলাকায় জাহাঙ্গীরের মালিকানাধিন বসুন্ধরা, আলমের ডিকে, পশ্চিমপাড়া হারুনের সোনালী, আসাদের সিভিল ম্যাজিক কয়েল কারখানায় কয়েক দফা অভিযান চালিয়ে অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। কিন্তু কারখানা মালিকরা রাতারাতি আবার সংযোগ দিয়ে বীর দর্পে কারখানা চালাচ্ছে।