আমেরিকা প্রবাসীর নিখোঁজ স্ত্রী আটমাস পর উদ্ধার

বন্দর প্রতিনিধি : বাবার বাড়ি থেকে নিখোঁজ হওয়া আমেরিকা প্রবাসীর স্ত্রী সানজিদা ইসলাম মরিয়মকে (২১) আটমাস পর চট্টগ্রাম থেকে উদ্ধার করেছে ডিএমপির রামপুরা থানা পুলিশ। চট্টগ্রাম শহরের কোতোয়ালী থানাধীন কাজীর দেউরি ভিআইপি টাওয়ার এলাকার ব্যাটারী গলির আনু মিয়ার বাড়ি থেকে প্রবাসীর স্ত্রীকে উদ্ধার করা হয়।

শনিবার (৩ সেপ্টেম্বর) ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের রামপুরা থানার উপ-পরিদর্শক জহুরুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, গত ৩১ আগস্ট রামপুরা থানায় জিডি করেন প্রবাসীর ছোট ভাই এম হাসান। এরপর ৩৬ ঘন্টার মধ্যেই শুক্রবার (২ সেপ্টেম্বর) সকালে সানজিদাকে চট্টগ্রাম থেকে উদ্ধার করে ঢাকায় এনে তার পিতার জিম্মায় দেওয়া হয়েছে। নিখোঁজ কন্যাকে আটমাস পর ফিরে পেয়ে আবেগাপ্লুত হন পিতা রফিকুল ইসলাম রফিক।

উদ্ধার হওয়ার পর সানজিদা জানান, স্বামী প্রবাসে থাকায় তিনি বাবার বাড়িতেই থাকতেন। পিতা-মাতা ও স্বামীর ওপর অভিমান করে তিনি স্বেচ্ছায় নিখোঁজ হন। তাকে আমেরিকায় স্বামীর কাছে নিতে দেরি হচ্ছে বলেই এ ঘটনা ঘটিয়েছেন।

জানা গেছে, চলতি ২০২২ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি নারায়ণগঞ্জের বন্দর থানা এলাকার মালামত গ্রামের বাবার বাড়ি থেকে নিখোঁজ হন সানজিদা। ওইদিনই তার পিতা রফিকুল ইসলাম রফিক বন্দর থানায় নিখোঁজ সংক্রান্ত জিডি করেন। প্রায় আটমাসেও প্রবাসীর স্ত্রীর কোনো সন্ধান পায়নি বন্দর থানা পুলিশ। এনিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হয়।

বন্দর থানা পুলিশের বিরুদ্ধে দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগ তোলেন আমেরিকা প্রবাসী এম মিয়া। তার স্ত্রী কারো হাত ধরে পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করেছে কিনা! সে বিষয়েও পুলিশ এবং পরিবারের কারো কাছে কোনো তথ্য ছিলনা। অজ্ঞাত প্রতিপক্ষরা অপহরণ করে গুম করেছে কিনা- এমন শঙ্কাও প্রকাশ করেন ওই প্রবাসী। তার পক্ষে গত ৩১ আগস্ট ছোট ভাই এম হাসান রামপুরা থানায় জিডি করে। থানার উপ-পরিদর্শক জহুরুল ইসলাম সঙ্গীয় অফিসার ও ফোর্স নিয়ে প্রবাসীর স্ত্রীর সন্ধানে মাঠে নামেন। ৩৬ ঘন্টার ব্যবধানে নিখোঁজ সানজিদাকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয় রামপুরা থানা পুলিশ। এ অভিযানে সহযোগিতা করেন সিএমপির কোতোয়ালী থানা পুলিশ।