কঠোর তৎপরতা ট্রাফিক পুলিশের ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের শিমরাইল মোড়ে

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি ঃ সিদ্ধিরগঞ্জের ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের শিমরাইল মোড়ে নারায়ণগঞ্জ ট্রাফিক পুলিশের কঠোর তৎপরতা। বিশেষজ্ঞদের মতে আলোচিত করোনা ভাইরাস ঠেকানোর একমাত্র উপায় সামাজিক দূরত্ব। এ সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে দেশ জুড়ে চলছে লকডাউন। আর জেলা ভিত্তিক সংক্রমণ এড়াতে দেওয়া হয়েছে এক জেলা থেকে অন্য জেলায় প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা। নারায়ণগঞ্জ জেলার প্রবেশমুখে জোরদার করা হয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা। তবে অনেকক্ষেত্রেই এ তৎপরতা ঢিলেমিতে পৌঁছে গেছে। ব্যাতিক্রম চিত্র সিদ্ধিরগঞ্জের ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের শিমরাইল মোড়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা ট্রাফিক পুলিশের। জায়গাটি ঢাকার অন্যতম প্রবেশ পথ হওয়ায় নির্দেশনা অনুযায়ী কঠোর অবস্থানে ট্রাফিক পুলিশ সদস্যরা। করোনাকালে নারায়ণগঞ্জ জেলা ট্রফিক পুলিশের টিআই প্রশাসন মোল্যা তাসলিম হোসেনের নির্দেশে চিটাগাংরোড ট্রফিক পুলিশকে ঢেলে সাজানো হয়েছে। টিআই প্রশাসন মোল্যা তাসলিম হোসেনের নির্দেশে ট্রফিক পুলিশ ও জেলা পুলিশ সদস্যরা যৌথভাবে মহাসড়কে ব্যারিকেট দেয়। শনিবার (৯’মে) দুপুরে যানবাহনের প্রবেশ ঠেকাতে দেওয়া হয় এ ব্যারিকেট এবং বিনা প্রয়োজনে বের হওয়ার কারণে কয়েকটি যানবাহনের বিরুদ্ধে নেওয়া হয়েছে আইনগত ব্যবস্থা। ব্যারিকেট দেওয়া পুলিশ সদস্যরা হলেন, টিআই মোঃ মাহাবুব, ডিবি পুলিশের এসআই মনির, এটিএসআই শাহজাহান, এটিএসআই আনোয়ারসহ আরো অনেক পুলিশ সদস্যরা। নারায়ণগঞ্জ জেলা ট্রাফিক পুলিশের টিআই প্রশাসন মোল্যা তাসলিম হোসেন বলেন, প্রশাসনিক নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা আমাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি। দেশের বর্তমান পরিস্থিতি পরিবর্তন হওয়ার আগ পর্যন্ত আমাদের কাজের ধারা অব্যাহত থাকবে। বিনা প্রয়োজনে সড়কে আসা ব্যাক্তিগত গাড়ির বিরুদ্ধে নেওয়া হচ্ছে আইনানুগ ব্যবস্থা। এ ব্যাপারে কোন প্রকার তদবির আমরা আমলে নেওয়া হচ্ছে না। তিনি আরও বলেন, ট্রাফিক পুলিশ সদস্যরা মহাসড়কে কঠোর অবস্থানে রয়েছে। তাই অনিয়ম করার কোনো সুযোগ নেই। তবুও কোন অনিয়ম চোঁখে পড়লে তাকে ছাড় দেওয়া হবেনা বলেও হুঁশিয়ারি দেন।######